২০০ শতাংশ লভ্যাংশ ঘোষণার পরও দাম কমেছে ওয়ালটনের

নিজস্ব প্রতিবেদক || প্রকাশ: ২০২০-১০-২৬ ১০:০০:৫৩ || আপডেট: ২০২০-১০-২৬ ১০:০৮:৩০

পুঁজিবাজারের তালিকাভুক্ত প্রকৌশল খাতের কোম্পানি ওয়ালটন হাই-টেক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড শেয়ার হোল্ডারদের ২০০ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দেয়ার ঘোষণা দিলেও রোববার কোম্পানিটির শেয়ার দর কমেছে।

গত সপ্তাহের শেষ কার্যদিবস বৃহস্পতিবার শেয়ারটি সর্বশেষ ৭৫৫ টাকা ৮০ পয়সায় বিক্রি হয়। গত শনিবার এই কোম্পানির বোর্ড মিটিংয়ে ২০০ শতাংশ লভ্যাংশ ঘোষণার পর রোববার সর্বশেষ লেনদেন হয়েছে ৬৮৮ টাকা ৬০ পয়সা। অর্থাৎ দাম কমেছে ৬৭ টাকা ২০ পয়সা।

জানা যায়, চলতি বছরে তালিকাভুক্ত হওয়া কোম্পানিটি ১০ টাকা অভিহিত মূল্যে বাজারে শেয়ার ছাড়ে। অর্থাৎ প্রতিটি শেয়ারের বিপরিতে বিনিয়োগকারীরা ২০ টাকা পাবেন। সাধারণ বিনিয়োগকারীরা ২০ টাকা পেলেও উদ্যোক্তারা পাবেন ৭ টাকা বা ৭৫ শতাংশ লভ্যাংশ।

এদিকে তালিকাভুক্ত নতুন কোম্পানি হিসেবে ২০০ শতাংশ লভ্যাংশ ঘোষণা করার পরও এই শেয়ারে ক্রেতাদের আগ্রহ কম থাকায় কিছুটা মিশ্র পতিক্রিয়া দেখা গেছে বাজারে। সংশ্লিষ্টরা ইতিবাচক-নেতিবাচক উভয়ই ভাবছেন।

আবদুল আওয়াল নামের একজন বিনিয়োগকারী সানবিডিকে বলেন, ওয়ালটন খুব অল্প পরিমান শেয়ার সাধারণ বিনিয়োগকারীদের জন্য ছেড়েছে। ফলে উদ্যোক্তা বা পরিচলকদের হাতে বিশাল পরিমান শেয়ার রয়ে গেছে। অল্প কিছু শেয়ার বাজারে থাকায় চাহিদাও বেশি। কিন্তু দাম বাড়া-কমা নিয়ে বিনিয়োগকারীদের মধ্যে উৎকণ্ঠা রয়েছে। ফলে লভ্যাংশ দিলেও শেয়ারের দাম কমেছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন স্টেকহোল্ডার বলেন, সাধারণ বিনিয়োগকারীদের ২০০ শতাংশ দিলেও উদ্যোক্তারা রাখছেন মাত্র ৭৫ শতাংশ। এটা নিয়ে বিনিয়োগকারীরা কিছুটা উদ্বিগ্ন। ফলে বাজারে এর প্রভাব পড়েছে।

কোম্পানি সূত্রে জানা গেছে, ৩০ জুন শেষ হওয়া ২০১৯-২০ অর্থবছরে আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি মুনাফা (ইপিএস) হয়েছে ২৪ টাকা ২১ পয়সা এবং চলতি বছরের ৩০ জুন কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ২৬৪ টাকা ৪৮ পয়সা।

কোম্পানিটির বার্ষিক সাধারণ সভার (এজিএম)আগামী ২৩ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হবে। রেকর্ড ডেট নির্ধারণ করা হয়েছে ১৯ নভেম্বর।

পুঁজিবাজারে এ কোম্পানির ৩০ কোটি ২৯ লাখ ২৮ হাজার ৩৪৩টি শেয়ার আছে। এর মধ্যে ৯৯ দশমিক শূণ্য ৩ শতাংশ আছে পরিচালকদের হাতে। প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের কাছে দশমিক ৪৫ শতাংশ এবং সাধারণ বিনিয়োগকারীদের হাতে রয়েছে মাত্র দশমিক ৫২ শতাংশ শেয়ার।

কোম্পানিটির বর্তমান বাজার মূলধন ২২ হাজার ৮৯৫ কোটি ৩২ লাখ টাকা। পরিশোধিত মূলধন ৩০২ কোটি ৯৩ লাখ টাকা। আর রিজার্ভের পরিমাণ ৬ হাজার ৯৯৮ কোটি টাকা।

পুঁজিবাজারের সব খবর পেতে জয়েন করুন 

Sunbd News–ক্যাপিটাল নিউজক্যাপিটাল ভিউজস্টক নিউজ

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ