Main Menu

ইভিএম দুরভিসন্ধিমূলক : বিএনপি

Rizviআগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে ই-ভোটিং ব্যবস্থার কথা বলছেন, সেটিকে ‘নিঃসন্দেহে দুরভিসন্ধিমূলক’ বলছে বিএনপি।

দলটি বলছে, ‘এটি জনগণের ভোটকে স্বীয় উদ্দেশ্য সাধনে জালিয়াতি করার প্রচেষ্টা মাত্র। এটি প্রধানমন্ত্রীর আরেকটি ভেল্কিবাজিরই বর্ধিত প্রকাশ।’

বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজধানীর নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে ইভিএম নিয়ে দলের এই প্রতিক্রিয়া দেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

তিনি বলেন, ‘পৃথিবীর অন্যান্য দেশেও যারা ইভিএম পদ্ধতিতে ভোটগ্রহণের নিয়ম চালু করেছিল, কিন্তু এ ব্যবস্থায় ত্রুটি থাকায় তারা সেটি বন্ধ করে দেয়। কারণ এ পদ্ধতিতে দূর থেকে হ্যাক করা সম্ভব বলেই স্বচ্ছ নির্বাচনের স্বার্থে এটি বাতিল করা হয়েছে সেসব দেশে।’

বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘ভারত, জার্মানি, সুইজারল্যান্ড, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রসহ অনেক দেশ ই-ভোটিং পদ্ধতি চালু করলেও এটির বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয় এবং সেটি বন্ধ করে দেওয়া হয়। বাংলাদেশে এখনও অনেক মানুষ নিরক্ষর। এত টেকনিক্যাল বিষয় উপলব্ধি করা বা বোঝা তাদের জন্য কষ্টসাধ্য। এই পদ্ধতিতে ই-ভোটিংয়ের সার্ভার সরকার নিয়ন্ত্রণ করতে পারবে। সুতরাং সরকারের জন্য ভোট ম্যানিপুলেট করা খুবই সহজ হবে।’

প্রাক্তন সিইসি এটিএম শামসুল হুদা ইভিএম চালুর প্রস্তাব করলেও পরে সেই অবস্থান থেকে সরে আসার বিষয়টি তুলে ধরে রিজভী বলেন, ‘তখন বুয়েটসহ কম্পিউটার বিশেষজ্ঞ এবং প্রায় সব রাজনৈতিক দল সেটির বিরোধিতা করেছিল। সিইসি কাজী রকিবউদ্দীন আহমেদও এই পদ্ধতিটি চালুর জোর প্রচেষ্টা চালান। ওই সময়ে বিএনপিসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দল এই পদ্ধতির বিরুদ্ধে আপত্তি তোলায় ইভিএম নিয়ে কাজী রকিবউদ্দীন ইভিএম চালু থেকে সরে আসেন।’

নতুন নির্বাচন কমিশন নিয়ে সৃষ্ট বিতর্ক এড়াতে ইভিএম ইস্যু সামনে আনা হয়েছে দাবি করে বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘যে সরকার উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে নিজেদের অভিপ্রায় পূরণ করতে নির্বাচন কমিশন গঠন করেছে, নিজেদের ঘরের ছেলেকে প্রধান নির্বাচন কমিশনার বানিয়েছে; সেই সরকার জনগণের ইচ্ছার সঠিক প্রতিফলন ঘটাবে- এটি কেউ বিশ্বাস করে না।’

তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী এখন জনগণের দৃষ্টিকে সিইসির দিক থেকে অন্যত্র সরানোর জন্য ই-ভোটিং ব্যবস্থার আরেকটি ম্যাজিক জনগণের সামনে প্রদর্শন করছেন। এটি প্রধানমন্ত্রীর ভোটারবিহীন নির্বাচন করার আরেকটি ডিজিটাল প্রতারণা কিনা, তা নিয়ে জনমনে ব্যাপক সংশয় দেখা দিয়েছে।’

বিএনপি সরকারের কোনো ষড়যন্ত্রে পা দেবে না বলেও এ সময় মন্তব্য করেন রিজভী।

সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা আব্দুস সালাম, খায়রুল কবির খোকন, হাবিবুল ইসলাম হাবিব, আব্দুল আউয়াল খান, অধ্যক্ষ সেলিম ভূইয়া, আসাদুল করিম শাহীন, তাইফুল ইসলাম টিপু, মুনির হোসেন, বেলাল আহমেদ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।






মতামত দিন

Your email address will not be published. Required fields are marked as *

*