ঢাকা, , সোমবার, ১৭ ডিসেম্বর ২০১৮

‘বাংলাদেশকে জানলেই বঙ্গবন্ধুকে ধারণ করবে’

|| প্রকাশ: ২০১৭-০৩-০৫ ১৪:২৯:১২ || আপডেট: ২০১৭-০৩-০৫ ১৪:২৯:১২

Jibonআনোয়ার হোসেন জীবন। ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের সহ-সম্পাদক। দীপ্ত কণ্ঠের অধিকারী এ তরুণ ঢাকা কলেজের স্লোগান মাস্টার হিসেবে পরিচিত ছিলেন। একাধিকবার মৃত্যুজয় করায় তাকে মৃত্যুঞ্জয়ী ছাত্রনেতাও বলা হয়। সানবিডির চাঁদপুর জেলা প্রতিনিধি ইমরান হোসেনের সাথে একান্ত আড্ডায় উঠে এসেছে তার জীবনের বিভিন্ন গল্প।

জীবন জন্ম গ্রহণ করেন চাঁদপুর সদরের তরপুরচণ্ডীতে। ঢাকা কলেজ থেকে পদার্থ বিদ্যায় সম্মান শেষ করেছেন। রাজনীতির সাথে তার প্রথম পরিচয় কিভাবে হলো জানতে চাইলে তিনি বলেন,

“চাঁদপুর তিন আসনে স্বাধীনতা পরবর্তী প্রথম নৌকা নিয়ে প্রথম জয়ী হন ডাক্তার দীপু মনি। বিপ্লব নামের এক বড় ভাইর আঁকা দেয়ালিকা নৌকার ছবি দেখে অনুপ্রাণিত হয়েছিলাম। বাবা প্রতিবছর  বঙ্গবন্ধুর নতুন নতুন ছবি আনতেন। ছবির প্রেম থেকেই শুরু। দীর্ঘকায় সুদর্শন লোকটির প্রতি মোহাবিষ্ট হলাম”

উত্তর পশ্চিম তরপুরচণ্ডী প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে পাশ করার পর ভর্তি হন চাঁদপুর হাসান আলী উচ্চ বিদ্যালয়ে। বাবার থেকেই বঙ্গবন্ধুর গল্প শুনে অণুপ্রাণিত হওয়া। বিএনপি আমলেই স্কুল ছাত্রলীগের সভাপতি নির্বাচিত হন তিনি। তৎকালীণ চাঁদপুর জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি জাহিদুল ইসলাম রোমান ও ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সেক্রেটারি মাইনুদ্দিন আরিফ,  চাঁদপুর সরকারি কলেজের ছাত্রলীগ নেতা হুমায়ন কবীর সুমনের হাত ধরেই রাজনীতির হাতেখড়ি।

জীবনের বাবার স্বপ্ন ছিলো ছেলে ডাক্তার হবে। কিন্তু জীবন চাইতেন না। তাই মেডিক্যালে ভর্তি কোচিং করতে ঢাকায় এলেও দেয়া হয়নি পরীক্ষা। কোচিং ও করা হয়নি নিয়মিত। সারাদিন কেটেছে রাজনীতি কিংবা মধুর ক্যান্টিনে। ঢাকা কলেজ ছাত্রলীগ নেতা হাসান সিদ্দিকির হাত ধরেই ছাত্রলীগের রাজনীতিতে পদচারণা। ঢাকা কলেজের ইন্টারন্যাশনাল হলে স্থান পান তিনি। কলেজে দ্রুত ও মিছিল আয়োজন করায় তার জুড়ি ছিলো ভার। ২০১৩ সালের ৪ জানুয়ারি ঢাকা কলেজ ছাত্রলীগ প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে সুইম-পল্লব কমিটি সম্মানিত হয়।

২০১৩ সালে ২৫ জানুয়ারি কলেজ গেটে বসে থাকা অবস্থায় হামলা হয় তার ওপর। গুলি করা হয় ও কুপিয়ে মাথায় জখম করা হয়। তাঁর মাথার ঘিলু ও বাম অংশ আঘাত প্রাপ্ত হয়। এখনও সেই ক্ষতচিহ্ন বয়ে বেড়াতে হচ্ছে। এ বিষয়ে আনোয়ার হোসেন জীবন বলেন, ” প্রায় ১ মাস লাইফ সাপোর্ট ও দীর্ঘ ৬ মাস হাসপাতালে থাকার পর সুস্থ্য হই। এর মধ্যোই মাথায় অস্ত্রপচার করা হয় দুবার। সবাই ধারণা করে নিয়েছিলো আমি আর বাঁচবো না। দ্বিতীয় দফা অপারেশনের পর পরেই চলে যাই গাজীপুরে সিটি নির্বাচনের প্রচারণায়।

তৎকালীণ সাধারণ সম্পাদক সিদ্দিকী নাজমুল আলমের ধমক খেতে হয়। এরপরেও ছাত্রলীগের কর্মকাণ্ডে সক্রীয় অংশগ্রহণ ছিলো। ২০১৬ সালে তাকে ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের সহ-সম্পাদক মনোনিত করা হয়। লাইফ সাপোর্ট থেকে ফিরে আমার পরেও জীবনের ওপর হামলা হয়।  হলের ভেতর ঘুমের মধ্যেও  হামলা করা হয় একবার।

চাঁদপুর বর্ণচোরা নাট্যগোষ্টীর সক্রীয় কর্মী আনোয়ার হোসেন আরণ্যকের মঞ্চ অভিনেতা। বক্তব্য-বির্তক রক্তদান কর্মসুচী ও রক্ত দানের সংগঠণ বাঁধনের সাথে যুক্ত আছেন তিনি। শহিদুল্লায় কায়সারের বিখ্যাত গ্রন্থ সারেং বউ উপন্যাস তার মনে অ্যাডভেঞ্চারের নেশা জাগিয়ে তুলেছে বলে তিনি জানান। এছাড়াও মানিক বন্দোপাধ্যায়, তারাশংকর বন্দোপাধ্যায় ও বিভূতিভূষণ বন্দোপাধ্যায় লেখা পড়ে তিনি সুপ্ত সাহিত্যরস খুঁজে পেতেন বলে জানান তিনি।

তরুণ প্রজন্মকে নিয়ে বলেন, দেশের প্রতিটি তরুণ-তরুণীর বাংলাদেশকে জানা প্রয়োজন। বাংলাদেশকে জানলেই বঙ্গবন্ধুকে ধারণ করবে। দেশপ্রেমে জাগ্রত হবে। দেশ ও বঙ্গবন্ধু আলাদা নয়। একে অপরের পরিপূরক একটি ছাড়া অন্যটি অসম্পূর্ণ।

সানবিডি/ঢাকা/ইমরান/জেএইচ/এসএস