ঢাকা, , বুধবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৮

কোম্পানির ৬০০ কোটি টাকার বন্ড অনুমোদন

পুঁজিবাজার ডেস্ক || প্রকাশ: ২০১৮-১০-১১ ২০:১৪:১৯ || আপডেট: ২০১৮-১০-১১ ২০:১৪:১৯

শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত দুই প্রতিষ্ঠানের ৬০০ কোটি টাকার বন্ড অনুমোদন দিয়েছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)। বৃহস্পতিবার বিএসইসির ৬৬০তম কমিশন সভায় এ অনুমোদন দেয়া হয়।

প্রতিষ্ঠান দুইটির মধ্যে ট্রাস্ট ব্যাংকের ৫০০ কোটি টাকার এবং আইপিডিসি ফাইন্যান্স লিমিটেডের ১০০ কোটি টাকার বন্ড অনুমোদন দিয়েছে।

বিএসইসির নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র মো: সাইফুর রহমান স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানা গেছে।

জানা গেছে, ট্রাস্ট ব্যাংকের ৫০০ কোটি টাকার ফ্লোটিং রেট নন-কনভার্টেবল সাবঅর্ডিনেটেড বন্ডের প্রস্তাব অনুমোদন করেছে। যার মেয়াদ হবে ৭ বছর। এই বন্ডের বৈশিষ্ঠ্য হচ্ছে নন-কনভার্টেবল, ফুললি রিডেম্বল, ফ্লোটিং রেট, আনসিকিউরড, আনলিস্টেড সাবঅর্ডিনেটেড বন্ড। বন্ডটি ৭ বছরে পূর্ণ অবসায়ন হবে। যা বিভিন্ন আর্থিক প্রতিষ্ঠান ইন্স্যুরেন্স, কোম্পানিসমূহ, ফান্ড এবং অন্যান্য যোগ্য বিনিয়োগকারীদের প্রাইভেট প্লেসমেন্টের মাধ্যমে ইস্যু করা হবে। উল্লেখ্য, এই বন্ড ইস্যুর মাধ্যমে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান থেকে অর্থ উত্তোলন ট্রাস্ট ব্যাংক টায়ার-টু ক্যাপিটাল বেজ শক্তিশালী করবে। এই বন্ডের প্রতি ইউনিটের অভিহিত মূল্য ১ কোটি টাকা। এই বন্ডের ট্রাস্টি ও ম্যানেডেটেড লিড অ্যারেঞ্জার হিসাবে যথাক্রমে সেনা কল্যান ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড এবং স্ট্যান্ডার্ড চাটার্ড ব্যাংক কাজ করছে।

অপর প্রতিষ্ঠান আইপিডিসি ফাইন্যান্সের ১০০ কোটি টাকার ফ্লোটিং রেট নন-কনভার্টেবল ফুললি রিডেম্বল সাবঅর্ডিনেটেড বন্ডের প্রস্তাব অনুমোদন করেছে। যার মেয়াদ হবে ৫ বছর। এই বন্ডের বৈশিষ্ঠ্য হচ্ছে নন-কনভার্টেবল, ফুললি রিডেম্বল, ফ্লোটিং রেট, আনসিকিউরড, আনলিস্টেড সাবঅর্ডিনেটেড বন্ড। বন্ডটি ৫ বছরে পূর্ণ অবসায়ন হবে। যা বিভিন্ন আর্থিক প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারী এবং উচ্চ সম্পদশালী বিনিয়োগকারীদের প্রাইভেট প্লেসমেন্টের মাধ্যমে ইস্যু করা হবে। উল্লেখ্য, এই বন্ড ইস্যুর মাধ্যমে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান থেকে অর্থ উত্তোলন করে আইপিডিসি ফাইন্যান্স টায়ার-টু ক্যাপিটাল বেজ শক্তিশালী করবে। এই বন্ডের প্রতি ইউনিটের অভিহিত মূল্য ১ কোটি টাকা। এই বন্ডের ট্রাস্টি ও ম্যানেডেটেড লিড অ্যারেঞ্জার হিসাবে যথাক্রমে ইবিএল ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড এবং সিটি ব্যাংক ক্যাপিটাল রিসোর্সেস কাজ করছে।

আর্কাইভ