ঢাকা, , বুধবার, ১৯ ডিসেম্বর ২০১৮

অফিসে ঘুম আসলে করণীয়……

সান বিডি ডেস্ক || প্রকাশ: ২০১৮-১১-২৫ ১৭:৩৩:১০ || আপডেট: ২০১৮-১১-২৫ ১৭:৩৩:১০

অফিসে ঢুকে কাজে বসলেই দু’চোখে নেমে আসে রাজ্যের যতোসব ঘুম। কাজের বারোটা বাজে তখনই, সহকর্মীদের কাছেও থাকে না নিজের ইমেজ। আর বসের চোখে পড়লে তো কথাই নেই।

এই সমস্যায় কম বেশি সবাই ভুগি আমরা। অফিস ঢুকেই হয়তো সেই ঘুম ঘুম ভাবটা থাকে না। কিন্তু দুপুরের খাওয়ার পর? তখন আর কম্পিউটার স্ক্রিনে চোখ রাখা যায় না। কিন্তু কীভাবে কাটাবেন এই অস্বস্তিকর অবস্থা? ঘুম কাটানোর দাওয়াই কি আছে আপনার কাছে? তবে আমাদের কাছে এমন কিছু উপায় আছে, যা আপনাকে ঘুম কাটাতে সাহায্য করবে। ইচ্ছে হলে একবার অনুসরণ করে দেখতে পারেন। চলুন জেনে নেয়া যাক-

এক ঘণ্টা পর পর মুখ ধোয়ার চেষ্টা করুন :

সারা দিন সতেজ ও কর্মক্ষম থাকার জন্য অন্তত এক ঘণ্টা পর পর মুখ ধুয়ে ফেলুন। এতে ঘুমের ভাব অনেকটা দূর হবে। ত্বকও ভালো থাকবে, আবার সতেজও লাগবে।

হাঁটাহাটি করুন

টানা এক জায়গায় বসে থাকলে ঘুম তো পাবেই। একটু হাঁটাহাঁটি করে নিন। ৫ মিনিট হাঁটলেই দেখবেন ঘুম পালাবে।

পানি খান

এক নিঃশ্বাসে শেষ করুন এক গ্লাস পানি। এতেই দেখবেন ঘুম ঘুম ভাব একটু কম হবে। চোখে মুখেও পানি দিয়ে নিতে পারেন। বেশ তরতাজা ভাব আসবে নিজের মধ্যে।

দুপুরে অল্প খাবার খান

আমাদের দেশে দুপুরবেলা ভারী খাবার খাওয়ার চল আছে। অফিসে থাকলেও এর ব্যতিক্রম হয় না। এর ফলে খাওয়ার পরপরই ঝিমুনি ধরে, ঘুম চলে আসে। তাই খুব সামান্য পরিমাণে পুষ্টিকর খাবার খাওয়ার চেষ্টা করুন। এতে শরীর সুস্থ থাকবে এবং ঘুমও আসবে না।

চা বা কফি নয়

দুপুরের খাবার পরেই চা বা কফি পান করবেন না। খুব নেশা থাকলে অন্তত ৩০ মিনিট বা ১ ঘণ্টা পরে চা বা কফির অর্ডার দিন।

গ্রিন টি খান

কাজের ফাঁকে এক কাপ গ্রিন টি খেতে পারেন। এতে ঘুমের রেশ কেটে যাবে এবং নতুন করে কাজ করার শক্তি পাবেন।

চিনি এড়িয়ে চলুন

চিনি অথবা চিনিজাতীয় যে কোনও খাবারের কারণে বেশি ঘুম পায়। তাই অফিসে যাওয়ার পর এ ধরনের খাবার থেকে দূরে থাকুন। তাহলে ঘুম আসার সম্ভাবনা কমবে।

এক ঘণ্টা অন্তর মুখ ধোয়ার চেষ্টা করুন

সারা দিন সতেজ ও কর্মক্ষম থাকার জন্য অন্তত এক ঘণ্টা পর পর মুখ ধুয়ে ফেলুন। এতে ঘুমের ভাব অনেকটা দূর হবে। ত্বকও ভালো থাকবে, আবার সতেজও লাগবে।

 বিরক্তিকর কাজগুলো কিছুক্ষণ এড়িয়ে চলুন

খাবার খাওয়ার পর বিরক্তিকর কাজগুলো এড়িয়ে চলুন। কারণ, বিরক্তিকর কাজগুলো মানসিকভাবে কাজের প্রতি অনীহা তৈরি করে, যার ফলে কাজ করার উৎসাহ হারিয়ে যায় এবং বারবার ঘুম পায়। এ সময়টাতে আপনার যে কাজ করতে ভালো লাগে, সেরকম কাজ করুন। এতে কাজে মন বসবে এবং ঘুম ঘুম ভাব চলে যাবে।