ঢাকা, , মঙ্গলবার, ২২ জানুয়ারী ২০১৯

বীমা কোম্পানিগুলোকে পুরস্কার দিবে আইডিআরএ

:: গিয়াস উদ্দিন || প্রকাশ: ২০১৯-০১-০৮ ০৯:৫৯:৪১ || আপডেট: ২০১৯-০১-০৮ ২১:৪২:৪৩

দেশের বীমা খাতের ইমেজ বাড়াতে নতুন-নতুন উদ্যোগ নিচ্ছে বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ (আইডিআরএ)। সরকারের সাবেক সচিব মো. শফিকুর রহমান পাটোয়ারীর নের্তৃত্বে নতুন উদ্যোগ বাস্তবায়ন করছে সংস্থাটির চৌকষ কর্মকর্তারা। উদ্দেশ্য একটাই বীমা খাতের দূর্ণাম দূর করে সুনাম ফিরিয়ে আনা। একই সঙ্গে দেশের অর্থনীতিতে অন্য দেশের মতো বীমা খাতের অবদান বাড়ানো।

আইডিআরএ সূত্র জানিয়েছে, মো. শফিকুর রহমান পাটোয়ারীর নেতৃত্বে বর্তমানে আইডিআরএ’র সদস্য হিসেবে রয়েছে সাবেক অতিরিক্ত সচিব গোকুল চাঁদ দাস, বোরহান উদ্দিন এবং ড. মোশাররফ হোসেন, এফসিএ। এছাড়া রয়েছে একঝাক মেধাবী নির্বাহী পরিচালক,পরিচালকসহ চৌকষ কর্মকর্তারা।

সূত্র মতে, বীমা খাতের ইমেজ বাড়াতে তারা বিভাগ,জেলা,উপ-জেলা এমনকি থানা পর্যায়ে ঘুরে বেড়াচ্ছেন সংস্থাটির চেয়ারম্যান থেকে পরিচালকরা। শুনছেন গ্রাহকদের কথা, তুলে আনছেন এই খাতের সমস্যা, করছেন সমাধান। ফলে আগের তুলনায় বাড়ছে এই খাতের সুনাম।

সূূত্র মতে, এবার আরও একটি নতুন উদ্যোগ নিতে যাচ্ছে সংস্থাটি। সংস্থাটি সেরা দাবী পরিশোধকারী প্রতিষ্ঠানকে পুরস্কার দিতে যাচ্ছে। তবে এই পুরস্কার দেয়া হবে প্রকাশ্যে দাবী পরিশোধের উপর ভিত্তি করে। প্রকাশ্যে সর্বোচ্চ দাবী পরিশোধকারী প্রতিষ্ঠানগুলো থেকে বাছাই করে পুরস্কার দিবে সংস্থাটি ।

জানা গেছে, ইতোমধ্যে সংস্থাটির নির্বাহী পরিচালক খলিল আহমেদ স্বাক্ষরিত একটি চিঠি লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানিগুলোতে পাঠানো হয়েছে। চিঠিতে বলা হয়েছে ২০১৮ সালের ১ জানুয়ারি থেকে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত বীমা কোম্পানিগুলো প্রকাশ্যে মোট কতো টাকার চেক বিতরণ করেছে সে তথ্য আগামী দুই কার্যদিবসের মধ্যে আইডিআরএ’র নিকট পাঠাতে হবে।

সূূত্র জানিয়েছে,কোম্পানিগুলো থেকে প্রাপ্ত তথ্য দেখে পুরস্কার দেওয়া হবে। আর এই পুরস্কার আগামী ফেব্রুয়ারি মাসে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া বীমা মেলাতে দেওয়া হবে। এবার এই মেলা অনুষ্ঠিত হবে বাণিজ্যিক শহর চট্টগ্রামে।

এ বিষয়ে বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রক কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যা মো. শফিকুর রহমান পাটোয়ারী সানবিডিকে বলেন, বীমা খাতের সুনাম ফিরাতে কাজ করছে আইডিআরএ। এরই অংশ হিসেবে আমরা প্রকাশ্যে দাবী পরিশোধ করা কোম্পানিগুলোর থেকে কিছু কোম্পানিকে পুরস্কৃত করতে চাই। যাতে করে এ বিষয়ে তাদের আগ্রহ বাড়ে।

তিনি বলেন,  আমরা মনে করি কোম্পানিগুলো যদি আগামীতে প্রকাশ্যে দাবী পরিশোধের পরিমাণ বাড়ায়, তাহলে বীমার প্রতি মানুষের আস্থা বাড়বে। তখন আর কেউ বলতে পারবে না, কোম্পানিগুলো দাবী পরিশোধ করে না। ফলে বীমার প্রতি গ্রাহকদের আস্থা বাড়ব।

সানবিডি/গিয়াস