ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের জন্য বিকল্প র্কাড চালুর প্রস্তাব বেসিসের

সান বিডি ডেস্ক || প্রকাশ: ২০১৯-০৪-০৯ ১১:৫০:১৯ || আপডেট: ২০১৯-০৪-০৯ ১১:৫২:৩০

বিভিন্ন ক্ষেত্রে ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের জন্য বিকল্প একটি কার্ড চালুর প্রস্তাব করেছে বেসিস। এতে এ খাতে ব্যয়ের পুরোটা সরকারের নজরদারিতে থাকবে। দেশের সফটওয়্যার খাতের উদ্যোক্তাদের সংগঠন বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস (বেসিস) একই সঙ্গে ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের জন্য একটি নীতিমালার প্রস্তাব তৈরিতেও হাত দিয়েছে।ডিজিটাল প্লাটফর্ম ব্যবহার করে ব্যবসার ক্ষেত্রে ডিজিটাল মার্কেটিং অপরিহার্য। এ জন্য বছরে বর্তমানে বিপুল অর্থ ব্যয় হয়। বেসিস মনে করছে ভবিষ্যতে তা হাজারো কোটি টাকা ছাড়িয়ে যাবে। তবে এ বিষয়ে সুনির্দিষ্ট কোনো নিয়ম-নীতি না থাকায় নানা জটিলতায় পড়ছেন সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীরা।বিষয়টির সুরাহা করতে বেসিস একটি নীতিমালা করার জন্য প্রস্তাব প্রণয়ন করছে। চলতি মাসের মধ্যেই এটি তারা বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে জমা দেবে।পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) মানি লন্ডারিং ইউনিটের সঙ্গে সোমবার বেসিসের ডিজিটাল মার্কেটিং স্ট্যান্ডিং কমিটির এক বৈঠকে এ সংক্রান্ত প্রস্তুতির কথা জানায় সংগঠনটি। বেসিস সভাপতি আলমাস কবীরের নেতৃত্বে স্ট্যান্ডিং কমিটি ওই বৈঠকে অংশ নেয়। সিআইডি কার্যালয়ে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

বেসিস ও বেসিসের মার্কেটিং স্ট্যান্ডিং কমিটির পরিচালক দিদারুল আলম সানি  জানান, ডিজিটাল মার্কেটিংয়ে খরচের বিষয়টি সরকারের পরিপূর্ণ নজরদারিতে আনতে তারা বিকল্প একটি কার্ড প্রচলন করার প্রস্তাব তৈরি করছেন।

তিনি বলেন, তাদের প্রাথমিক পরিকল্পনা অনুযায়ী বিকল্প এ কার্ড ব্যবহার করে ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের সব খরচ করতে পারবেন সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীরা।‘সেটি হলে সরকারের রাজস্ব আয়ের বিষয়টি যেমন নিশ্চিত থাকবে, একই সঙ্গে এ খাতের আর্থিক লেনদেন নজরদারিতেও কোনো সমস্যা হবে না বলেন সানি। বাংলাদেশ ব্যাংককে এ কার্ড যত দ্রুত সম্ভব চালুর অুনমোদন দিতে অনুরোধ জানিয়ে বেসিসের এই পরিচালক জানান, অনুমতি পাওয়া গেলে কোনো পেমেন্ট গেটওয়ের সঙ্গে আলাচোনার মাধ্যমে তারা কার্ডটি চালু করতে পারবেন।ইতিমধ্যে বেসিস একটি পেমেন্ট গেটওয়ের সঙ্গে এ বিষয়ে আলাপ করে রেখেছে বলেও বৈঠকে জানানো হয়।

বর্তমানে বেসিসের সদস্যরা একই রকমের দুটি কার্ড ব্যবহার করেন। এ কার্ডের মাধ্যমে তারা বছরে ৪২ হাজার ডলার পর্যন্ত খরচ করতে পারেন।বেসিসের এসব উদ্যোগের বিষয়টি সামনে এসেছে সম্প্রতি সিআইডির একটি দল বিভিন্ন ই-কমার্স কোম্পানির ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের খরচ সম্পর্কে খোঁজ-খবর নেওয়া শুরুর পর থেকে।সিআইডি এখন পর্যন্ত জনপ্রিয় ১০ ডিজিটাল কোম্পানি – রকমারি ডটকম, আজকের ডিল, দারাজ ডটকম, ফুডপান্ডা, খাশফুড, অথবা ডটকম, বিক্রয় ডটকম, চালডাল ডটকম, পিকাবো ও সেবা ডট এক্সওয়াইজেডের এ সংক্রান্ত খরচের ওপর তদন্ত চালাচ্ছে।

সিআইডি ইতিমধ্যে কোম্পানিগুলোর কাছ থেকে  ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের সংশ্লিষ্ট খরচের হিসাবও নিয়েছে। এসব হিসাবে অনেক ঘাপলা পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছে তদন্ত বিভাগটির একটি সূত্র।এ ১০ কোম্পানি ছাড়াও আগামীতে আরও কয়েকটি কোম্পানির ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের সংশ্লিষ্ট খরচের হিসাবও চেয়ে পাঠাবে বিভাগটি বলে জানান ওই কর্মকর্তা।

এ প্রেক্ষিতেই বেসিস নীতিমালা করতে সরকারকে অনুরোধ করেছে এবং এ সংক্রান্ত প্রস্তাব তৈরির কাজ শুরু করেছে। সোমবারের ওই বৈঠকে সিআইডির কাছ থেকেও সুপারিশ চেয়েছে সংগঠনটি। আগামী কয়েক দিনের মধ্যে সিআইডি তাদের প্রস্তাব জমা দেবে বলে জানিয়েছে।

বৈঠকে সিআইডির অর্গানাইজড ক্রাইম বিভাগের বিশেষ পুলিশ সুপার মোল্যা নজরুল ইসলাম ছাড়াও সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা এবং বেসিসের ডিজিটাল মার্কেটিং স্ট্যান্ডিং কমিটির চেয়ারম্যানসহ অন্যান্য সদস্যরা অংশ নেন।