ঢাকা,শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০১৯

নতুন এক বাংলাদেশকে দেখা যাচ্ছে

সান বিডি ডেস্ক || প্রকাশ: ২০১৯-০৪-১০ ১১:৩৭:০৬ || আপডেট: ২০১৯-০৪-১০ ১১:৩৭:০৬

ডব্লিউএসআইএস ফোরামের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনী দিনে চেয়ারম্যান হিসেবে টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার যখন বক্তব্য দিচ্ছেন তখন অডিটোরিয়ামের চারিদিকে পিনপতন নীরবতা।

মোস্তাফা জব্বার বাংলাদেশের উন্নয়নের একেকটি মাইলফলক বলছেন আর উপস্থিত দর্শকদের চোখ কপালে উঠছে। যেন কোন যাদুর কাঠির বলে উন্নয়নের এমন গতিতে ছুটছে দেশটি !

মোস্তাফা জব্বার সম্ভবত দর্শকসারিতে থাকা বিভিন্ন দেশের মন্ত্রী ও পলিসি মেকারদের চোখ কপালে ওঠা বুঝতে পেরেছিলেন। তাই তো ওই বক্তব্যেই উত্তরটা দিয়ে দিলেন।

‘আজকের এই সময়ে ডব্লিউএসআইসের এজেন্ডা ডিজিটাল প্রযুক্তিকে ব্যবহার করে ইকনোমিক্যাল ডেভেলপমেন্টের দিকে যাওয়া। যেটি বাংলাদেশ ভেবেছিল সেই কবে। শুধু ভেবে বসে থাকেনি তা বাস্তবায়নে অনেকে এগিয়ে গেছে দেশটি। সেখানে অন্যরা বিষয়টি এখন ভাবছে, পরিকল্পনা করছে।

বাংলাদেশের এখন মাথাপিছু আয়, শিক্ষার হার, জিডিপির যে ধারাবাহিক অগ্রগতি তা প্রমাণ করে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ডিজিটাল বাংলাদেশ ভিশন কতটা সুদূরপ্রসারী ছিল’ বলছিলেন মোস্তাফা জব্বার।  ডব্লিউএসআইএসের যে এজেন্ডা এবং এসডিজির যে লক্ষ্য তার প্রেক্ষাপটে মন্ত্রী বলেন, পৃথিবীর সব দেশ  একইভাবে চলছে না। আজ যেটি আফ্রিকার সমস্যা, যেটি বাংলাদেশের সমস্যা অথবা উন্নত দেশের যে সমস্যা- এগুলো একরকম নয়। এগুলোকে কাস্টমাইজড করতে হবে প্রতিটি দেশের নিজেদের প্রয়োজন অনুযায়ী।

ডিজিটাল নিরাপত্তা সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ উল্লেখ তিনি বলেন, এখন যেভাবে ডিজিটাল ডেভেলপমেন্ট হচ্ছে সেখানে নিরাপত্তার বিষয়টি নিশ্চিত করতে সবাইকে পারস্পরিক সহযোগিতার মধ্যে থাকতে হবে। এছাড়া গরীব দেশগুলোকে এগিয়ে নিতে উন্নত দেশগুলোকে পাশে থাকার আহবান জানান তিনি।

বক্তব্যের শেষে বিভিন্ন দেশের মন্ত্রীরা তাদের প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করতে গিয়ে বলেন, নতুন এক বাংলাদেশকে দেখা যাচ্ছে । অদূর ভবিষ্যতে বাংলাদেশ বড় উন্নয়নের মাইলফলকে যাবে তা অনুমেয়।এরপর সংবাদ সম্মেলনে বেশিরভাগই আলোচনাই বাংলাদেশকে নিয়ে হয়েছে। যেখানে আইটিইউর মহাসচিব হিসেবে হাউলিন ঝাউয়ের লিড দেয়ার কথা সেখানে মোস্তাফা জব্বারই মূখ্য হয়ে উঠেন তার বক্তব্যের কারণে।