ঢাকা,শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০১৯

দ্বিগুন বেড়েছে টমেটো-পেঁপে-শসার দাম

সান বিডি ডেস্ক || প্রকাশ: ২০১৯-০৪-১২ ১২:১৪:৪৬ || আপডেট: ২০১৯-০৪-১২ ১২:১৪:৪৬

রাজধানীর কাঁচাবাজার গুলোতে বেশ কিছুদিন ধরে তুলনামূলক কম দামে বিক্রি হওয়া পাকা টমেটো, কাঁচা পেঁপে ও শসার দাম হঠাৎ করেই বেড়েছে। এই পণ্যে গুলোর  দাম টানা দুই সপ্তাহ বেড়ে প্রায় দ্বিগুণ হয়েছে। বিপরীতে দু-একটির দাম কিছুটা কমলেও বাজারে প্রায় সব ধরনের সবজির দাম বেশ চড়া।

শুক্রবার (১২ এপ্রিল) রাজধানীর কারওয়ান বাজার, রামপুরা, শান্তিনগর, মালিবাগ হাজীপাড়া, খিলগাঁও এলাকার বিভিন্ন বাজার ঘুরে এবং ব্যবসায়ী-ক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলে এ তথ্য জানা গেছে।

বিভিন্ন সবজির পাশাপাশি রাজধানীর বাজারগুলোতে দুই মাসের বেশি সময় ধরে চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে মুরগি, গরু ও খাসির মাংস। ফলে সপ্তাহের ব্যবধানে মাংসের দাম নতুন করে না বাড়লেও ক্রেতারা স্বস্তি পাচ্ছেন না।

বাজারগুলোতে ঘুরে দেখা গেছে, কাঁচা পেঁপে বিক্রি হচ্ছে ৫০-৬০ টাকা কেজি, যা গত সপ্তাহে ছিল ৩০-৪০ টাকা। পাকা টমেটো মানভেদে বিক্রি হচ্ছে ৪০-৬০ টাকা কেজি, যা গত সপ্তাহে ছিল ৩০-৪০ টাকা। আর দুই সপ্তাহ আগে ২০-২৫ টাকা কেজিতে বিক্রি হওয়া শসার দাম বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫০-৭০ টাকা।

পেঁপে, শসা ও পাকা টমেটোর এমন দাম বাড়ার বিষয়ে শান্তিনগরের ব্যবসায়ী মো. মুজিবর বলেন, প্রতিবছরই রোজার সময় পেঁপে, শসা ও পাকা টমেটোর দাম বাড়ে। কারণ রোজার সময় পণ্যগুলোর চাহিদা অন্য সময়ের তুলনায় অনেক বেশি থাকে। রোজার শুরু হতে আর এক মাসও বাকি নেই তাই এখন এসব পণ্যের দাম কিছুটা বেড়ে গেছে। আমাদের ধারণা রোজায় শসা ও পেঁপের দাম খুব একটা বাড়বে না, তবে পাকা টমেটোর দাম বাড়তে পারে।

রামপুরার বাসিন্দা মামুন বলেন, রোজা আসতে এখনও প্রায় একমাস সময় বাকি। অথচ এখনই রোজায় যেসব পণ্যের চাহিদা থাকে সেগুলোর দাম বেড়ে গেছে। আসলে বাজারে কার্যকরি মনিটরিং ব্যবস্থা না থাকায় ব্যবসায়ীরা এভাবে পণ্যের দাম বাড়িয়ে দিচ্ছেন। এজন্য ভুগতে হচ্ছে সাধারণ জনগণের।

এদিকে দুই সপ্তাহের বেশি সময় ধরে ব্যাপক চড়া দামে বিক্রি হওয়া পটল ও সজনে ডাটার দাম কিছুটা কমেছে। বাজার ভেদে পটল বিক্রি হচ্ছে ৪০-৫০ টাকা, যা গত সপ্তাহে ছিল ৬০-৮০ টাকা কেজি। আর সজনে ডাটা পাওয়া যাচ্ছে ৬০-৭০ টাকা কেজির মধ্যে, যা গত সপ্তাহে ছিল ৮০-১০০ টাকা।

চড়া দামের পটল ও সজনে ডাটার দাম কিছুটা কমলেও অপরিবর্তিত রয়েছে বরবটি, কচুর লতি, শিম, লাউ, ধুন্দুল ও বেগুনের দাম। বরবটি গত সপ্তাহের মতো ৭০-৮০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে। একই দামে বিক্রি হচ্ছে ঢেঁড়স, কচুর লতি ও করলা।

শিম বিক্রি হচ্ছে ৪০-৬০ টাকা কেজি। লাউ ৭০-৮০ টাকা, ফুলকপি বিক্রি হচ্ছে ৫০-৬০ টাকা পিস। আর ধুন্দুল বিক্রি হচ্ছে ৭০-৮০ টাকা কেজি। বেগুন বিক্রি হচ্ছে ৪০-৬০ টাকা। মুলা বিক্রি হচ্ছে ৪০-৫০ টাকা কেজি। সপ্তাহের ব্যবধানে দাম অপরিবর্তিত থাকা গাজর বিক্রি হচ্ছে ৩০-৪০ টাকা কেজি।

মাংসের বাজার ঘুরে দেখা গেছে, বয়লার মুরগির কেজি আগের সপ্তাহের মতো বিক্রি হচ্ছে ১৬০ থেকে ১৭৫ টাকা। লাল লেয়ার মুরগি বিক্রি হচ্ছে ২১০ থেকে ২২০ টাকা কেজি। আর পাকিস্তানি কক বিক্রি হচ্ছে ২৭০-২৮০ টাকা কেজি। মুরগির মত দাম অপরিবর্তিত রয়েছে গরু ও খাসির মাংসের দাম। বাজার ভেদে গরুর মাংস ৫৩০-৫৬০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে। আর খাসির মাংস বিক্রি হচ্ছে ৭৫০-৮৫০ টাকা কেজি।

মাংসের মতো সপ্তাহের ব্যবধানে অপরিবর্তিত রয়েছে মাছের দাম। তেলাপিয়া মাছ বিক্রি হচ্ছে ১৬০-১৮০ টাকা কেজি। পাঙাশ বিক্রি হচ্ছে ১৫০-১৮০ টাকা কেজি। রুই ৩৫০-৬০০, পাবদা ৬০০-৭০০, টেংরা ৭০০-৮০০, শিং ৩০০-৫০০ এবং চিতল মাছ বিক্রি হচ্ছে ৫০০-৮০০ টাকা কেজি।

চড়া দামের বাজারে বেশ কিছুদিন ধরে ক্রেতাদের কিছুটা হলেও স্বস্তি দিচ্ছে পেঁয়াজ ও কাঁচা মরিচ। বাজার ভেদে দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ২৫-৩০ টাকা কেজি। আমদানি করা ভারতীয় পেঁয়াজ আগের মতই ২০-২৫ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে। কাঁচা মরিচের পোয়া (২৫০ গ্রাম) বিক্রি হচ্ছে ১০-২০ টাকা।

কারওয়ান বাজারের একজন ব্যবসায়ী জানান,রোজা কেন্দ্রিক পণ্যের দাম যা বাড়ার তা বেড়ে গেছে, রোজার মধ্যে নতুন করে পণ্যের দাম খুব একটা বাড়বে বলে মনে হয় না। তবে শসা, বেগুন, টমেটো, পেঁয়াজ, পেঁপের দাম বাড়তে পারে। বাকি সবগুলোর দাম বাড়ার খুব একটা সম্ভাবনা নেই বরং বরবটি, পটলসহ বেশ কিছু পণ্যের দাম কমবে।