ট্রেনের অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু হবে ২৯ জুলাই

সান বিডি ডেস্ক || প্রকাশ: ২০১৯-০৭-১১ ১৪:৫৫:২৫ || আপডেট: ২০১৯-০৭-১১ ১৪:৫৫:২৫

পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষে ২৯ জুলাই থেকে রেলওয়ে আন্তঃনগর ট্রেনের অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু হচ্ছে। ঈদুল ফিতরের মত এবারও রাজধানীর কমলাপুরসহ পাঁচ জায়গা থেকে একযোগে অগ্রিম টিকিট বিক্রি করা হবে। এদিকে ১৭ জুলাই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ঢাকা-বেনাপোল-যশোর রুটে ‘বেনাপোল এক্সপ্রেস’ নামে নতুন একটি ট্রেন উদ্বোধন করবেন।

রেলভবনে রেলওয়ের ঈদ ব্যবস্থাপনা নিয়ে অনুষ্ঠিত বৈঠকে এসব সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট এক কর্মকর্তা জানান।

ওই কর্মকর্তা জানান, সিদ্ধান্ত অনুযায়ী কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনে বিক্রি হবে যমুনা সেতু হয়ে সমগ্র পশ্চিমাঞ্চলগামী আন্তঃনগর ট্রেনের টিকিট, বিমানবন্দর স্টেশন থেকে দেওয়া হবে চট্টগ্রাম ও নোয়াখালীগামী সকল আন্তঃনগর ট্রেনের টিকিট, তেজগাঁও স্টেশন থেকে বিক্রি করা হবে ময়মনসিংহ ও জামালপুরগামী ট্রেনের টিকিট, বনানী স্টেশন থেকে বিক্রি হবে নেত্রকোনাগামী মোহনগঞ্জ ও হাওড় এক্সপ্রেসের টিকিট এবং রাজধানীর ফুলবাড়িয়া (পুরাতন রেলভবন) থেকে সিলেট ও কিশোরগঞ্জগামী ট্রেনের টিকিট বিক্রি করা হবে। প্রতিদিন সকাল ৯ থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত টিকিট বিক্রি চলবে।

ওই কর্মকর্তা আরও জানান, সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ২৯ জুলাই থেকে টিকিট বিক্রি শুরু হচ্ছে। যাত্রী প্রতি ৪টির বেশি টিকিট সংগ্রহ করা যাবে না। ঈদুল আযহা উপলক্ষে রেলওয়ের ৮ জোড়া বিশেষ ট্রেন চলাচল করবে। ট্রেনগুলো হলো-দেওয়ানগঞ্জ ঈদ স্পেশাল (এক জোড়া) : ঢাকা-দেওয়ানগঞ্জ-ঢাকা : চাঁদপুর ঈদ স্পেশাল (দুই জোড়া), চট্টগ্র্রাম-চাঁদপুর-চট্টগ্রাম, মৈত্রীর রেক দিয়ে খুলনা ঈদ স্পেশাল : খুলনা-ঢাকা-খুলনা, ঈশ্বরদী ঈদ স্পেশাল : ঢাকা-ঈশ্বরদী-ঢাকা, লালমনি ঈদ স্পেশাল: লালমনিরহাট-ঢাকা-লালমনিরহাট, শোলাকিয়া স্পেশাল-১: ভৈরববাজার-কিশোরগঞ্জ-ভৈরববাজার, শোলাকিয়া স্পেশাল-২: ময়মনসিংহ-কিশোরগঞ্জ- ময়মনসিংহ। ঈদের ৫ দিন আগে থেকে ঈদের আগের দিন পর্যন্ত আন্তঃনগর ট্রেনগুলোর কোনো সাপ্তাহিক বন্ধ থাকবে না।

এদিকে আগামী ১৭ জুলাই চালু হচ্ছে ঢাকা-বেনাপোল-যশোর রুটের নতুন ট্রেন ‘বেনাপোল এক্সপ্রেস।’ এদিন ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে নতুন এই ট্রেনের উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। উদ্বোধনী দিন বেলা সোয়া একটায় ট্রেনটি বেনাপোল থেকে ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে আসবে। এ ট্রেনে বগি থাকবে ১২টি। ৮৯৬ আসনের এই ট্রেন প্রতিদিন বেনাপোল স্টেশন থেকে ছেড়ে যশোর, ঈশ্বরদী জংশন ও ঢাকা বিমানবন্দরে যাত্রী ওঠানামার জন্য সাময়িক বিরতি দিয়ে কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনে এসে যাত্রা শেষ করবে।

বেনাপোল এক্সপ্রেস ট্রেনের শোভন চেয়ারের টিকিটের দাম ৫০০, এসি (শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত) চেয়ার ১০০০ ও এসি কেবিনের দাম ১২০০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। আধুনিক এই ট্রেনের কোচগুলো (বগি) ইন্দোনেশিয়া থেকে আমদানি করা হয়েছে। পরীক্ষামূলকভাবে ট্রেনটি এরই মধ্যে চালানো হয়েছে। কোরবানির ঈদযাত্রায় দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের মানুষ এই ট্রেনে চলাচলের সুবিধা ভোগ করতে পারবেন। বেনাপোল থেকে বেলা সাড়ে ১১টায় এবং ঢাকা থেকে রাত সাড়ে ১২টা ট্রেনটি যাত্রা করবে।