দুর্নীতি প্রতিরোধে সর্বাধিক গুরুত্ব দিচ্ছে দুদক: ইকবাল মাহমুদ

সান বিডি ডেস্ক || প্রকাশ: ২০১৯-০৮-২৪ ১৬:৫৭:৫৮ || আপডেট: ২০১৯-০৮-২৪ ১৬:৫৭:৫৮

দুর্নীতি প্রতিরোধ কার্যক্রমকে সবচেয়ে গুরুত্ব দিয়ে কার্যক্রম চালাচ্ছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। এ কার্যক্রম থেকে পিছিয়ে আসার কোনও সুযোগ নেই বলে মন্তব্য করেছেন সংস্থাটির চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ।

আজ শনিবার (২৪ আগস্ট) দুদক প্রধান কার্যালয়ের অডিটোরিয়ামে জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশল (এনআইএস) ও দুর্নীতি প্রতিরোধ কার্যক্রম বাস্তবায়ন বিষয়ক কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এ মন্তব্য করেন তিনি।

ইকবাল মাহমুদ বলেন, ‘দুদক কর্মকতাদের পদোন্নতি দেওয়া হচ্ছে যাতে তাদের কর্মস্পৃহা আরও বিকশিত হয় এবং নতুন উদ্যমে দুর্নীতি প্রতিরোধে নিজেদেরকে দৃঢ়ভাবে আত্মনিয়োগ করে।’

দুর্নীতি প্রতিরোধ কার্যক্রম থেকে পিছিয়ে আসার কোনও সুযোগ নেই উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘এক্ষেত্রে কর্মকর্তারাই মুখ্য ভূমিকা পালন করবেন। তাই মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের দুর্নীতি প্রতিরোধে নিবিড়ভাবে প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে।’

তিনি বলেন, দুর্নীতি প্রতিরোধে স্থানীয় জেলা প্রশাসনসহ অন্যান্য বিভাগ বা সংস্থার সহযোগিতার প্রয়োজন হলে তাদের সহযোগিতা নিয়ে সমন্বিতভাবে কাজ করতে হবে। দুদকের প্রতিরোধমূলক কার্যক্রম হবে অর্ন্তভুক্তিমূলক। দুদক নৈতিকমূল্যবোধ সম্পন্ন মানুষের প্লাটফর্ম হিসেবে কাজ করবে। সবাই একই ছাতার ছায়ায় থেকে তৃণমূল পর্যায়ে দুর্নীতি প্রতিরোধ কার্যক্রম ছড়িয়ে দেবেন।’

ইকবাল মাহমুদ বলেন, ‘দুদকের প্রতিরোধ অনুবিভাগের কার্যক্রম পরিচালনার জন্য একটি টাইম-বাউন্ড কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ করা হবে। প্রতিটি কার্যক্রম বাস্তবায়নের পাশাপাশি তদারকি ও মূল্যায়ন করতে হবে। কারণ দুর্নীতি প্রতিরোধ দুদকের সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ একটি আইনি ম্যান্ডেট। এর সঙ্গে ভবিষ্যৎ প্রজন্মের মূল্যবোধ ও নৈতিকতার বিষয়টি জড়িত। বর্তমান প্রজন্ম যদি সঠিকভাবে ভবিষ্যৎ প্রজন্মের মননে সুনীতি, চারিত্রিক সততা, নৈতিক মূল্যবোধ বপন করতে না পরে তাহলে আলোকিত প্রজন্ম সৃষ্টি হবে না।’

তিনি বলেন, ‘দুদক সীমিত সাধ্যের মধ্যেও প্রায় ২৮ হাজার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে তরুণ প্রজন্মের মাঝে সততা ও নৈতিক মূল্যবোধ বিকশিত করতে বহুমাত্রিক কার্যক্রম পরিচালনা করছে। অন্তত পক্ষে এই ২৮ হাজার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে দুর্নীতি প্রতিরোধে দুদকের বার্তা পৌঁছে দেওয়া সম্ভব হয়েছে।’

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ