‘হানিমুন’ বলা হয় কেন জেনে নিন

সান বিডি ডেস্ক || প্রকাশ: ২০১৯-০৯-২৫ ১৯:৪৫:৩১ || আপডেট: ২০১৯-০৯-২৫ ১৯:৪৫:৩১

শোনা যায় হানিমুনের উদ্ভাবক নাকি জার্মানরা৷ দ্যা সোর্টার অক্সফোর্ড ডিকশোনারী অনুযায়ী হানিমুন এর অর্থ ছিল ‘দ্যা ফাস্ট মান্থ আপটার মেরিজ’. কিন্তু হানিমুনের বর্তমান অর্থ হচ্ছে হোলিডে স্পেন্ট টুগেদার বাই এ নিউলী মেরিড কাপল, বিফোর সেটলিং ডাউন টু এ হোম.

আবার শোনা যায়, ‘হানিমুন’ শব্দের উৎস ব্যাবিলন৷ প্রাচীন ব্যাবিলনে বিয়ের পরে মেয়ের বাবা জামাইকে তাঁর চাহিদামতো মধু দিয়ে তৈরি মদ উপহার দিতেন। এই থেকেই কথাটি এসেছে ‘হানি’৷ ব্যাবিলনের ক্যালেন্ডার ছিল চান্দ্র। সেখান থেকে এসেছে মুন। শুরুতে নাকি ব্যাবিলনে বিয়ের পরের মাসকে হানি মান্থ বলা হত।

সেখান থেকে শব্দটি পরিবর্তিত হতে হতে শেষে হানিমুন হয়, যা প্রচলিত এবং জনপ্রিয় রীতি হিসেবেই গৃহীত৷ আবার অন্য একটি ব্যাখ্যায় বলা হয়, বিয়ের পরে টানা একমাস একপাত্র করে মধু দিয়ে তৈরি মদ খেতে হত নবদম্পতিকে। মধু দিয়ে তৈরি মদ খাওয়ার প্রথা সেই হুন রাজা অ্যাটিলার সময় থেকে চালু ছিল, যার থেকেই এসেছে হানিমুন শব্দটি।

আবার অনেকে মনে করেন, ‘মুন’ শব্দটির সঙ্গে ঋতুচক্রের যোগ রয়েছে। যার সঙ্গে আবার যৌনতাও জড়িয়ে৷ এর সঙ্গে হানি বা মধু জুড়ে দেওয়া হয়েছিল এটা বোঝাতে যে, বিয়ের পর কিন্তু একইরকম সুখ নাও পাওয়া যেতে পারে৷ বেশিরভাগ হানিমুন কাপল যেখানে বিয়ের পর দুজনে কোথাও ঘুরতে যায়, সবসময় কিন্তু এমনটা ছিল না৷ ১৯শতকে ব্রিটেনে কাপল-রা বিয়ের পর ব্রাইডাল ট্যুরে যেতেন৷ এই ট্যুরে নবদম্পতিরা সেইসব আত্মীয় এবং বন্ধুদের বাড়ি যেতেন, যাঁরা তাদের বিয়েতে উপস্থিত থাকতে পারেননি৷

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ