লাইসেন্স পাচ্ছে এনআরবি ইসলামিক লাইফ

:: বিশেষ প্রতিনিধি || প্রকাশ: ২০২০-০৩-১৯ ১৫:২৯:০৩ || আপডেট: ২০২০-০৩-১৯ ১৫:৩২:২৯

সব জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে অবশেষে অনুমোদন পাচ্ছে একটি কোম্পানি এনআরবি ইসলামিক লাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড। গত বুধবার আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ থেকে পাঠানো এক চিঠিতে এনআরবি ইসলামিক লাইফের লাইসেন্স প্রদানের জন্য নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ থেকে পাঠানো এ সংক্রান্ত চিঠিতে বলা হয়, “এনআরবি ইসলামিক লাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড নামে নতুন একটি জীবন বীমা কেম্পানিকে নিবন্ধন প্রদানের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নীতিগত অনুমোদন প্রদান করেছেন।”

এ অবস্থায় ‘এনআরবি ইসলামিক লাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড.’ কে নিবন্ধন প্রদানের লক্ষ্যে বীমা আইন, ২০১০ অনুসারে প্রয়োজনীয় কার্যক্রম গ্রহণের জন্য নির্দেশক্রমে অনুরোধ করা হলো।

উল্লেখ্য, ২০১৩ সালেই এনআরবি ইসলামিক লাইফ ইন্স্যুরেন্স নিবন্ধনের জন্য আবেদন করলে কোম্পানিটিকে লাইসেন্স প্রদানের অনুমোদন দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তবে সে সময়ে কোম্পানিটিকে অনুমোদন দেয়নি বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ (আইডিআরএ) ।

সূত্র মতে, ২০১৮ সালের ৫ ডিসেম্বর আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সচিব আসাদুল ইসলাম স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে সাবেক অর্থমন্ত্রীর বরাত দিয়ে এনআরবি ইসলামিক লাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেডকে লাইসেন্স প্রদানের নির্দেশ প্রদান করা হয়। ওই চিঠিতে এনআরবি ইসলামিক লাইফের লাইসেন্স প্রদান করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করে ১৫ ডিসেম্বরের মধ্যে অর্থমন্ত্রণালয়কে জানানোর নির্দেশ দেয়া হয়।

কিন্তু এই নির্দেশ আমলে নেয়া হয় না। উল্টো ১৭ ডিসেম্বর এক চিঠিতে আইডিআরএ’র পক্ষ থেকে পরিচালক (উপ-সচিব) একেএম ফজলুল হক স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগকে জানানো হয়, এনআরবি ইসলামিক লাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেডকে নিবন্ধন প্রদান করতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সদয় অনুমোদন প্রয়োজন।

পরবর্তীতে ১ জানুয়ারি, ২০১৯ তারিখে আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের উপ-সচিব মোহাম্মদ ইফতেখার হোসেন স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে অর্থমন্ত্রীর বরাত দিয়ে আইডিআরএ’কে জানানো হয়, ২০১৩ সালে যখন কোম্পানিটির লাইসেন্সের জন্য আবেদন করা হয় তখনই প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন নেয়া হয়েছে। পুনরায় অনুমোদন নেয়ার প্রয়োজন নেই। ওই নির্দেশনার আলোকে প্রয়োজনীয় কার্যক্রম গ্রহণ করে আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগকে জানানোর নির্দেশ দেয়া হয়।

ওই চিঠিতে অর্থমন্ত্রীর বক্তব্য কোড করে বলা হয়, ‘এনআরবি ইসলামিক লাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড’ নামে নতুন একটি জীবন বীমা কোম্পানিকে নিবন্ধন/ লাইসেন্স প্রদানের বিষয়ে মাননীয় অর্থমন্ত্রী “আমার যতটা মনে পড়ে তাতে মনে হয় যে এই কোম্পানির আবেদনপত্রের বিষয়টি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন নেওয়া হয়।………… তাই এ ক্ষেত্রে পুনরায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন প্রয়োজন নেই। পূর্বানুমোদনের ভিত্তিতেই লাইসেন্স প্রদান করা যায়” –মর্মে নির্দেশনা প্রদান করেছেন।

এরপরও এনআরবি ইসলামিক লাইফকে লাইসেন্স প্রদান না করে ৩০ জানুয়ারি ২০১৯ সালে আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সচিব মো. আসাদুল ইসলামকে আইডিআরএ’র চেয়ারম্যান মো. শফিকুর রহমান পাটোয়ারি স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে আবারো এনআরবি ইসলামিক লাইফের লাসেন্স প্রদানে প্রধানমন্ত্রীর সদয় অনুমোদন সংক্রান্ত কাগজপত্র কর্তৃপক্ষ বরাবর পাঠাতে বলা হয়।

এ বিষয়ে এনআরবি ইসলামিক লাইফ ইন্স্যুরেন্সের চেয়ারম্যান জি এম কিবরিয়া সানবিডিকে বলেন, ২০১৩ সালেই আমার কোম্পানিটি লাইসেন্স পাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু আমি তা পাইনি। দীর্ঘ ৭ বছর পর লাইসেন্স পাচ্ছি। এটা আমার জন্য খুবই আনন্দের বিষয়। একজন প্রবাসী বিনিয়োগকারী হিসেবে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমার প্রতি সদয় হয়েছেন, এ জন্য আমি তাকে আন্তরিকভাবে অভিনন্দন জানাই।

তিনি বলেন, বাংলাদেশে বীমাখাত নিয়ে নানা ধরণের নেতিবাচক বক্তব্য রয়েছে। ২০১৩ সালে যেসব কোম্পানি অনুমোদন পেয়েছে তাদের মধ্যে অনেক কোম্পানি ব্যবসায়িক সফলতা পায়নি। আমি আশা করি এনআরবি ইসলামীক লাইফ অবশ্যই ব্যবসায়কিভাবে সফল হবে। বীমাখাতের নেতিবাচক ধারণা দূর করার পাশাপাশি গ্রাহকসেবার মাধ্যমে দেশের অর্থনীতিতে অবদান রাখাই হবে এনআরবি ইসলামিক লাইফের লক্ষ্য।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ