আজীবন বাড়ি থেকেই কাজ করতে পারবেন টুইটারের কর্মীরা

সান বিডি ডেস্ক || প্রকাশ: ২০২০-০৫-১৩ ১৭:০৫:০৯ || আপডেট: ২০২০-০৫-১৩ ১৭:০৫:০৯

রোনাভাইরাস মহামারির প্রেক্ষাপটে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টুইটার তার কর্মীদের নতুন নির্দেশনা দিয়েছে। সেটি হচ্ছে, তারা চাইলে এখন থেকে ‘আজীবন’ বাড়িতে বসেই কাজ করতে পারবেন।

লকডাউনের সময় টুইটার বাড়ি থেকে কাজ করার যে ব্যবস্থা চালু করেছিল, সেটি কার্যকর হওয়ার পর এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে কোম্পানি।

তবে লকডাউন উঠে যাওয়ার পর যখন অফিস খোলা হবে, তখন তারা চাইলে অফিসে এসেও কাজ করতে পারবেন। কাজের জন্য অফিসে আসা বা না আসা গোটা বিষয়টাই কর্মীদের ওপর ছেড়ে দিয়েছে টুইটার। এক্ষেত্রে তারা পূর্ণ স্বাধীনতা ভোগ করতে পারবেন বলে জানা গেছে।

এর আগে, এই মাসের শুরুর দিকে গুগল ও ফেসবুক জানিয়েছে, বছর শেষ না হওয়া পর্যন্ত তাদের কর্মীরা বাড়ি থেকে কাজ করতে পারবেন।

বাড়ি থেকে কাজ করার ঘোষণায় টুইটার বলেছে: ‘গত কয়েক মাসে এটা প্রমাণিত হয়েছে যে, আমরা বাড়ি থেকেও কাজ করতে পারছি। সুতরাং আমাদের কর্মীরা যদি বাড়ি থেকে কাজ করার মতো দায়িত্ব ও পরিস্থিতিতে থাকে এবং তারা যদি বাড়িতে বসেই আজীবন কাজ করতে চায়, আমরা সেই ব্যবস্থা করবো।’

টুইটার তাদের ঘোষণায় আরো বলেছেন, যেসব কর্মীরা অফিসে আসতে আগ্রহী, টুইটার তাদের সেই ইচ্ছাকেও স্বাগত জানাবে। তবে সেক্ষেত্রে কিছু অতিরিক্ত সুরক্ষা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

বিশ্বজুড়ে সানফ্রানসিসকো ভিত্তিক এই কোম্পানির চার হাজারের বেশি কর্মী রয়েছে।

বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার প্রেক্ষিতে গত মার্চ মাস থেকেই কর্মীদের বাড়ি থেকে কাজ করার সুযোগ দিচ্ছে টুইটার। আগামী সেপ্টেম্বরের আগে তাদের অফিস চালু করার সম্ভাবনা নেই।

এদিকে টুইটারের ঘোষণাকে ‘যুগান্তকারী’ বলে বর্ণনা করেছেন একজন ডিজিটাল উদ্ভাবন বিশেষজ্ঞ শ্রী শ্রীনিবাসন।

স্টোকি ব্রুক ইউনিভার্সিটির স্কুল অফ জার্নালিজমের এই ভিজিটিং প্রফেসর বলছেন, ‘অনেকে হয়তো টুইটারের মতো এত গভীরভাবে বিষয়টিকে গ্রহণ করেনি। কিন্তু কর্ম পরিবেশ কীভাবে আরামদায়ক করে তোলা যায়, তা নিয়ে সিলিকন ভ্যালির এই কোম্পানির কাছ থেকে আমাদের অনেক কিছু শেখার আছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘একটা প্রচলিত ধারণা আছে যে, বাড়ি থেকে কাজ করার মানে হলে কাজে ফাঁকি দেয়া এবং অফিসে চেহারা দেখানো অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু কর্মীরা এখন প্রমাণ করছেন যে, তারা বাড়ি থেকে ভালো কাজ করতে পারেন এবং প্রয়োজনীয় সব কাজ সম্পন্ন করতে পারেন। অনেকেই আমাকে বলেছেন, বাড়িতে তাদের কঠোর পরিশ্রম করতে হচ্ছে এবং ক্লান্ত হয়ে পড়ছেন।’ সূত্র: বিবিসি বাংলা
সানবিডি/ঢাকা/এসএস

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ