লঞ্চডুবি : চিকিৎসা নিতে এসে প্রাণ হারালেন পাঁচ পরিবারের সাতজন

সান বিডি ডেস্ক || প্রকাশ: ২০২০-০৬-২৯ ২০:২০:৩৮ || আপডেট: ২০২০-০৬-২৯ ২০:২০:৩৮

মুন্সিগঞ্জ জেলার টঙ্গীবাড়ি থানার আতরকাঠি গ্রামের বেলায়েত হোসেন ওরফে বিল্লাল স্ত্রী মারুফাকে (২৬) গ্যাস্টোলিভার সমস্যার চিকিৎসার জন্য শিশু সন্তান তালহাসহ (২) ঢাকায় পাঠিয়েছিলেন। সঙ্গে এসেছিল তার ভায়রা আলম বেপারী (৪০)। কিন্তু হাসপাতাল পর্যন্ত যাওয়া হলো না তাদের। সকালে বুড়িগঙ্গায় লঞ্চডুবিতে প্রাণ হারিয়েছেন তারা।

পুরান ঢাকার স্যার সলিমুল্লাহ মিটফোর্ট হাসপাতালে বোনের লাশ নিয়ে এসেছেন মারুফার ভাই মো. সুমন। তাদের বাড়ি মুন্সি সুমন জানান, ঢাকার অ্যাপোলো হাসপাতালে এক চিকিৎসককে দেখানোর জন্যই সকালে ভাগ্নেকে নিয়ে কাঠপট্টি থেকে লঞ্চে ওঠে তার বোন। সঙ্গে আরেক বোন জামাই আলম ব্যাপারী ছিলেন। লঞ্চডুবিতে নদীতে পড়ার পর আর কেউ উঠতে পারেননি। সবাই মারা গেছেন।

মুন্সিগঞ্জের সদর থানার সুজানগর গ্রামের জাকির হোসেনের স্ত্রী সুবর্ণা (৩০), ছেলে তামিম (১২)ও মামা শ্বশুর গোলাম হোসেনও (৪০) এ ঘটনায় প্রাণ হারান। তারাও ঢাকা আসছিলেন চিকিৎসার জন্য।

স্ত্রী সুবর্ণার লাশ নিতে মিটফোর্টে এসেছেন জাকির হোসেন। সন্তানের মৃত মুখ দেখে বিলাপ করে কাঁদছিলেন। তার এক আত্মীয় জানান, তামিমের চিকিৎসার জন্য ঢাকার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালে মামা শ্বশুরের সঙ্গে আসছিলেন সুবর্ণা।

এ সময় জাকির চিৎকার করে বলে ওঠেন, ‘আমার স্ত্রী-সন্তানরে ফেরত দেন। তাদের হত্যা করা হইসে, কেন এভাবে আমার স্ত্রী-সন্তানকে প্রাণ দিতে হইলো?’

অন্যদিকে মা সুফিয়া খাতুনকে ডাক্তার দেখাতে ঢাকা নিয়ে আসছিলেন মেয়ে সুমি খানম। যখন লঞ্চডুবে যায়, তখন মা-মেয়ে একসঙ্গেই ছিলেন। পেছন থেকে অন্য যাত্রী মাকে টেনে ধরায় তাকে আর বাঁচাতে পারেননি সুমি। আক্ষেপ করে মিটফোর্টে বসে সুমি নিজেই জানিয়েছেন এ কথা।

আজ সকালে রাজধানীর শ্যামবাজার এলাকা সংলগ্ন বুড়িগঙ্গা নদীতে লঞ্চডুবির ঘটনায় এখন পর্যন্ত ৩১ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। এর মধ্যে আটজন নারী, তিনজন শিশু এবং ২০ জন পুরুষ রয়েছেন। নিখোঁজদের সন্ধানে এখনো উদ্ধার কাজ অব্যাহত রয়েছে।

লঞ্চডুবির ঘটনায় মৃত পরিবারকে দেড় লাখ টাকা করে দেওয়া হবে। এছাড়া লাশ দাফনের জন্য নগদ ১০ হাজার টাকা করে দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ।

প্রতিমন্ত্রী আরও জানান, ঘটনা তদন্তের জন্য সাত সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। সাত দিনের মধ্যে কমিটিকে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।
সানবিডি/ঢাকা/এসএস

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ