বিশ্ববাজারে স্বর্ণের রেকর্ড দাম, আয়হীন দেশের স্বর্ণশিল্পীরা 

সান বিডি ডেস্ক || প্রকাশ: ২০২০-০৭-২৩ ০৮:১১:০৮ || আপডেট: ২০২০-০৭-২৩ ০৮:১১:০৮

বিশ্বজুড়ে মহামারি করোনাভাইরাসের প্রকোপের মধ্যে আগুন লেগেছে স্বর্ণের দামে প্রতিদিনই লাফিয়ে লাফিয়ে স্বর্ণের দাম বেড়ে নতুন নতুন রেকর্ড সৃষ্টি হচ্ছে। ইতোমধ্যে আউন্স প্রতি স্বর্ণের দাম ১৮৫৯ ডলারে পৌঁছে গেছে। স্বর্ণের এমন দাম ২০১১ সালের সেপ্টেম্বর ছাড়া আর কখনও দেখা যায়নি।

বিশ্ববাজারে স্বর্ণের দাম এমন উত্তাপ ছড়ালেও বিপাকে রয়েছে দেশের স্বর্ণশিল্পী ও অলঙ্কার ব্যবসায়ীরা। বিশ্ববাজারে দাম বাড়ায় একদিকে দেশের বাজারে স্বর্ণের দাম বেড়ে ইতিহাসের সর্বোচ্চ পর্যায়ে পৌঁছেছে, অন্যদিকে করোনার কারণে স্বর্ণের অলঙ্কার বিক্রি আশঙ্কাজনক হারে কমে গেছে। ফলে অনেকটাই আয়হীন হয়ে পড়েছেন অলঙ্কার ব্যবসায়ীরা। বিক্রি না থাকায় স্বর্ণশিল্পীরা বেকার সময় কাটাচ্ছেন।

এ ব্যাপারে দেশের স্বর্ণের অলঙ্কার সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ী ও শিল্পীরা বলছেন, করোনার প্রকোপ শুরু হওয়ার পর থেকেই স্বর্ণের অলঙ্কার বিক্রি একপ্রকার বন্ধই হয়ে গেছে। এর মধ্যে ২৬ মার্চ থেকে ৩১ মে পর্যন্ত টানা ৬৬ দিন সরকার সাধারণ ছুটি ঘোষণা করে। এ সময় ব্যবসা-প্রতিষ্ঠান বন্ধ ছিল। সাধারণ ছুটির পর ব্যবসা-প্রতিষ্ঠান খুললেও অলঙ্কার বিক্রি হচ্ছে না।

তারা বলছেন, বছরের সব থেকে বেশি স্বর্ণের অলঙ্কার বিক্রি হয় রোজার ঈদ, পূজা ও নতুন ধান ওঠার পর। এবার সবকিছু করোনার মধ্যে পড়ে গেছে। করোনার কারণে মানুষ ঘর থেকে কম বের হওয়ার কারণে রোজার ঈদে বিক্রি একেবারেই ছিল না। আবার নতুন ধান ওঠার পরও স্বর্ণের অলঙ্কারের চাহিদা ছিল না।

দেশের বাজারে স্বর্ণের অলঙ্কার বিক্রি না হলেও বিশ্ববাজারে চলতি বছরের শুরু থেকেই স্বর্ণের দাম বাড়ছে। আন্তর্জাতিক বাজারে স্বর্ণের দাম নির্ধারণ হয় আউন্স হিসাবে। এক আউন্স স্বর্ণ ৩১ দশমিক ১০৩ গ্রামের সমান। গত বছরের শেষের দিকে আন্তর্জাতিক বাজারে প্রতি আউন্স স্বর্ণের দাম ছিল ১৪৫৪ ডলার। এরপর করোনাভাইরাসের প্রকোপের মধ্যে ফেব্রুয়ারিতে ১৬৬০ ডলারে উঠে যায়। তবে মার্চে আন্তর্জাতিক বাজারে দাম কমে এক ধাক্কায় প্রতি আউন্স ১৪৬৯ ডলারে নেমে আসে।

এ পতন ঠেকিয়ে স্বর্ণের দাম ঘুরে দাঁড়াতে বেশি সময় নেয়নি। মে মাসে প্রতি আউন্স স্বর্ণ ১৭৪৮ ডলারে উঠে যায়। এরপর থেকে দাম প্রতিনিয়ত বেড়েই চলেছে। তবে চলতি সপ্তাহে সেই দাম বাড়ার পালে আরও হাওয়া লেগেছে। জুন মাসে বিশ্ববাজারে প্রতি আউন্স স্বর্ণের দাম ১৮০০ ডলারের কাছাকাছি ঘুরপাক খেতে থাকে। জুলাই মাসে প্রতি আউন্স স্বর্ণের দাম ১৮০০ ডলারে উঠে যায়। তবে চলতি সপ্তাহের আগ পর্যন্ত স্বর্ণের দাম ১৭৯০ থেকে ১৮১০ ডলারের মধ্যে ঘুরপাক খাচ্ছিল।

এ পরিস্থিতিতে চলতি সপ্তাহের প্রতি কার্যদিবসে হু হু করে বেড়েছে স্বর্ণের দাম। তিনদিনে আন্তর্জাতিক বাজারে প্রতি আউন্স স্বর্ণের দাম বেড়েছে ৫০ ডলারের ওপরে। ১৮০৮ ডলার নিয়ে সপ্তাহ শুরু করা স্বর্ণের দাম সপ্তাহের প্রথম কার্যদিবস সোমবার ১৮২০ ডলার স্পর্শ করে। মঙ্গলবার তা আরও বেড়ে ১৮৪২ ডলারে ওঠে।

সপ্তাহের প্রথম দুই কার্যদিবসের মতো বুধবারও স্বর্ণের দাম বৃদ্ধির ধারা অব্যাহত রয়েছে। ইতোমধ্যে প্রতি আউন্স স্বর্ণের দাম ১৮৫৯ ডলারে উঠেছে। ২০১১ সালের পর বিশ্ববাজারে স্বর্ণের এমন দাম আর দেখা যায়নি।

এদিকে বিশ্ববাজারে দাম বাড়ার প্রেক্ষিতে গত ২২ জুন বাংলাদেশে দাম বাড়ানোর ঘোষণা দেয় স্বর্ণ ব্যবসায়ীদের সংগঠন বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতি (বাজুস)। ২৩ জুন থেকে দেশের বাজারে কার্যকর হওয়া নতুন দাম অনুযায়ী, সবচে‌য়ে ভালো মানের বা ২২ ক্যারেটের প্রতি ভরি (১১ দশমিক ৬৬৪ গ্রাম) স্বর্ণের দাম পাঁচ হাজার ৭১৫ টাকা বা‌ড়িয়ে নির্ধারণ করা হয় ৬৯ হাজার ৮৬৭ টাকা।

২১ ক্যারেটের প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম চার হাজার ৯০০ টাকা বা‌ড়িয়ে ৬৬ হাজার ৭১৮ টাকা এবং ১৮ ক্যারেটের প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম এক হাজার ১৬৭ টাকা বা‌ড়িয়ে ৫৭ হাজার ৯৭০ টাকা নির্ধারণ করা হয়। সনাতন পদ্ধতিতে স্বর্ণের দাম তিন হাজার ৬১৬ টাকা বা‌ড়িয়ে ৪৭ হাজার ৬৪৭ টাকা করা হয়। দেশের ইতিহাসে স্বর্ণের এত দাম আগে কখনও ছিল না।

স্বর্ণশিল্পী সমিতির সভাপতি গঙ্গাচরণ বলেন, রোজার ঈদ চলে গেছে আমাদের কোনো বিক্রিই হয়নি। কোরবানির ঈদ সামনেও বিক্রি নেই। বিক্রি না থাকলেও আমাদের ব্যবসা-প্রতিষ্ঠানের ভাড়া দিতে হচ্ছে। কর্মচারীদের বেতন দিতে হচ্ছে। এতদিন কষ্ট করে কর্মীদের বেতন পরিশোধ করেছি। সামনে কীভাবে চলবে তা নিয়ে চিন্তায় আছি।

বিশ্ব বাজারে স্বর্ণের দাম বাড়ার বিষয়ে তিনি বলেন, যখন রাজনৈতিক বা অর্থনৈতিক অনিশ্চয়তা দেখা দেয় তখন বড় বিনিয়োগকারীদের একটি অংশ স্বর্ণ কিনে মজুত করেন। ফলে দাম বেড়ে যায়। বর্তমান মহামরি করোনা পরিস্থিতিতেও সেইটাই দেখা যাচ্ছে। এছাড়া শেয়ারবাজারে মন্দার কারণে শেয়ারবাজারের গেমাররা স্বর্ণ কিনছেন যে কারণে দাম বাড়ছে। আর আন্তর্জাতিক বাজারে স্বর্ণের দাম বাড়ার কারণে দেশের বাজারেও স্বর্ণের দাম বাড়াতে হচ্ছে।

সানবিডি/এনজে

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ