ঢাকা, , শনিবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৮

৫২ দিন পর বড়পুকুরিয়া তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রে উৎপাদন শুরু

নিজস্ব প্রতিবেদক || প্রকাশ: ২০১৮-০৯-১৪ ০৯:২৩:৫০ || আপডেট: ২০১৮-০৯-১৪ ০৯:২৩:৫০

দীর্ঘ ৫২ দিন বন্ধ থাকার পর দিনাজপুরের বড়পুকুরিয়ার তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রে উৎপাদন শুরু হয়েছে।
বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি থেকে কয়লা পাওয়ার পর বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ২টা ২৭ মিনিটে থেকে শুরু হয় এই উৎপাদন।
কয়লার অভাবে গত ২২ জুলাই দেশের এই একমাত্র কয়লাবিদ্যুৎ কেন্দ্রের উৎপাদন বন্ধ হয়ে গিয়েছিল।
বড়পুকুরিয়া তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের প্রধান প্রকৌশলী আব্দুল হাকিম সরকার বলেছেন, ২৭৫ মেগাওয়াট উৎপাদন ক্ষমতা সম্পন্ন তৃতীয় ইউনিটটির বিদ্যুৎ উৎপাদন শুরুর লক্ষ্যে বৃহস্পতিবার বিকেল ৫টায় স্টিম চালু করা হয়।
“রাত ২টা ২৭ মিনিটে উৎপাদন শুরুর মধ্য দিয়ে জাতীয় গ্রিডে যোগ হয় বড়পুকুরিয়া তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের উৎপাদিত বিদ্যুৎ।” তিনি বলেন, তৃতীয় এই ইউনিটটি চালু রাখতে প্রতিদিন প্রয়োজন দুই হাজার আটশ মেট্রিক টন কয়লা। তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রে মজুদ আছে প্রায় ছয় হাজার টন কয়লা।
আর গত ৮ সেপ্টেম্বর বড়পুকুরিয়া কয়লা খনিতে কয়লা উত্তোলন শুরু পর প্রতিদিন দুই হাজার থেকে ২২’শ টন কয়লা খনি থেকে পাওয়া যাচ্ছে।
আব্দুল হাকিম সরকার জানান, মোট ৫২৫ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতা সম্পন্ন এই কেন্দ্রের ২৭৫ মেগাওয়াট উৎপাদন ক্ষমতা সম্পন্ন তৃতীয় ইউনিটটি চালু করা হয়েছে।
কয়লার মজুদ বাড়লে বিদ্যুৎ কেন্দ্রের প্রথম ও দ্বিতীয় ইউনিট দুটি চালু করা হবে। ওই দুটি ইউনিটের উৎপাদন ক্ষমতা ১২৫ মেগাওয়াট করে মোট ২৫০ মেগাওয়াট।
বড়পুকুরিয়া কয়লা খনির উত্তোলন গত ১৯ জুন বন্ধ হয়ে যাওয়ার পর এবং খনি থেকে এক লাখ ৪৪ হাজার মেট্রিক টন কয়লা উধাও হলে সংকটে পড়ে বড়পুকুরিয়া তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্র।
ফলে কয়লার অভাবে গত ২২ জুলাই বন্ধ হয়ে যায় বড়পুকুরিয়া তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের উৎপাদন।
এরই মধ্যে গত ২০ আগস্ট শুধু ঈদের জন্য বিদ্যুৎ কেন্দ্রটির ১২৫ মেগাওয়াট উৎপাদন ক্ষমতা সম্পন্ন একটি ইউনিট চালু করা হয়।
৯দিন চালু থাকার পর তা আবার বন্ধ করে দেয়া হয়। এতে লো-ভোল্টেজ আর লোডশেডিংয়ে বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে উত্তরাঞ্চলের আট জেলার মানুষ।

আর্কাইভ