ইতিহাস ঐতিহ্যর সাক্ষী সিরাজগঞ্জের নবরত্ন মন্দির

সান বিডি ডেস্ক || প্রকাশ: ২০২১-০৩-২৪ ১২:০৯:২৬ || আপডেট: ২০২১-০৩-২৪ ১২:১০:৫৩

বগুড়া-নগরবাড়ি মহাসড়কের সিরাজগঞ্জের রায়গঞ্জ উপজেলার সলংগা থানার হাটিকুমরুলে কালের সাক্ষী হয়ে দাঁড়িয়ে রয়েছে শিল্পকর্মের অপূর্ব নিদর্শন নবরত্ন মন্দির। ইতিহাস ঐতিহ্যর সাক্ষী এ মন্দিরটি স্থাপনে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির এক নজির পরিলক্ষিত হয়। আর এ দৃষ্টিনন্দিত নবরত্ন মন্দিরটি একজন মুসলিম শাসকের অর্থায়নে হিন্দু তহশিলদার দ্বারা নির্মাণ করা হয়। এ মন্দিরটি ‘দেলমঞ্চ’ নামেও স্থানীয়ভাবে পরিচিত।

সিরাজগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আগত শত শত নারী-পুরুষ প্রতিদিন প্রায় দিনভর দৃষ্টিনন্দিত এ মন্দিরটি দেখতে আসেন। এ মন্দিরটির সর্বাঙ্গ পোড়ামাটির কাব্যগাঁথা। এ নবরত্ন মন্দিরকে ঘিরে একটি শিব মন্দিরসহ আরও ৩টি ছোট মন্দির প্রতিষ্ঠিত হয়। এসব মন্দিরের দেয়াল পোড়ামাটি কারুকার্যখচিত।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, ১৭০৪-১৭২৮ খ্রিস্টাব্দে নবাব মুর্শিদ কুলি খানের শাসনামলে তার তহশিলদার রামনাথ ভাদুরী স্থাপন করেন এ নবরত্ন মন্দিরটি। এ মন্দিরটি ইট, চুন সুরকি মসল্লা দিয়ে নির্মিত উঁচু একটি বেদীর উপর তিনতলা বিশিষ্ট এ নবরত্ন মন্দিরটি। প্রায় ১৫ বর্গমিটার এলাকাজুড়ে প্রতিষ্ঠিত মন্দিরের প্রতিটি বাহুর দৈর্ঘ্য ১৫.৪ মিটার এবং প্রস্থ ১৩.২৫ মিটার। এ মন্দিরের নিচতলায় চারদিকে ৪টি বারান্দা বিশিষ্ট একটি গর্ভগৃহ রয়েছে। প্রতিটি বারান্দার বাইরের দিক থেকে ৭টি ও ভেতরের দিকে রয়েছে ৫টি খিলাল প্রবেশ পথ। ছাদপ্রান্তে আংশিক বাঁকানো রয়েছে। মূল অবস্থায় মন্দিরের দেয়ালের ইট ও টেরাকোটার উপরে দেব-দেবী, লতাপাতা ও ফুলের চিত্রখচিত পোড়ামাটির অপূর্ব কারুকাজ।

নির্মিত নবরত্নের এ কারুকাজ দর্শণার্থীর দৃষ্টি কেড়েছে। মন্দির এলাকার প্রবীণসহ অনেক ব্যবসায়ী বলেন, এক সময় এ মন্দিরটি ছিল অবহেলিত। এখানকার হিন্দুরাও পূজা-অর্চনা করত না। প্রায় এক যুগ ধরে এখানে আনন্দঘন পরিবেশে শারদীয় দুর্গোৎসব পালন করা হচ্ছে। এ মন্দিরের পাহারাদার মহব্বত আলী সেখ বলেন, এ মন্দিরে প্রতিদিন ৪/৫’শ লোক প্রবেশ করলেও সাপ্তাহিক ছুটির দিন ও বিশেষ দিনগুলোতে দ্বিগুণ লোকজন হয়।

শুধু বাংলাদেশ নয়, ভারতসহ বিভিন্ন দেশের পর্যটকরা এখানে বেড়াতে আসেন। প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তর ইতোমধ্যেই ওই স্থাপনাটির সৌন্দর্য্যবর্ধন ও বাউন্ডারি ওয়াল নির্মাণ কাজ সম্পন্ন করেছে। তবে আরো একটি প্রকল্প অনুমোদন ও বাস্তবায়ন হলে অপূর্ব কারুকার্য খচিত নবরত্ন মন্দিরটি পর্যটকরা আরো আকৃষ্ট হবে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্র থেকে জানানো হয়েছে।

 

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •