ভারতের বিজেপি সরকার কেন বার্মিজ সামরিক জান্তার চেয়েও ভয়ংকর!

সান বিডি ডেস্ক || প্রকাশ: ২০২১-০৪-০১ ১১:৩২:৪৫ || আপডেট: ২০২১-০৪-০১ ১১:৩২:৪৫

১৯৮২ সালে বার্মিজ মিলিটারি জান্তা সরকার যখন নাগরিকত্ব আইন পরিবর্তন করে রোহিংগাদের নাগরিকত্ব হরন করে বলেছিল এরা বাংলাদেশ থেকে আসা মানুষ, তখন বাংলাদেশ কি বুঝেছিল সামনে কি ভয়ংকর দিন অপেক্ষা করছে! ঠিক একই ভাবে নাগরিকত্ব আইন পরিবর্তন করতে যাচ্ছে ভারতের মোদি সরকার।

ভারতে আমাদের প্রতিবেশী প্রদেশ আসামে বিজেপি ক্ষমতায় আসার আগেই রাজনৈতিক ময়দারে গলা উঁচু করে বলতো প্রায় ৫০ লাখ অবৈধ মুসলিম বাংলাদেশি আসামে আছে তাই ক্ষমতায় আসলে National Register of Citizens (NRC) করে তাদের বিতারিত করা হবে, বিজেপি ক্ষমতায় এসে NRC করে প্রায় ১৯ লাক অবৈধ নাগরিক পেয়েছে আসামে এর মাঝে ৬ লাখের মত বাংলাভাষী মুসলিম ১১ লাখ বাংলাভাষী হিন্দু আর বাকিটা ভিন্ন জাতি ধর্মের মানুষ। যেহেতু আসামে প্রায় ১৩ লাখ নন মুসলিম NRC এর হিসাবে অবৈধ তাই তাদের অফিসিয়ালি নাগরিকত্ব দেবার জন মদির এই বিজেপি সরকার নতুন আইন করছে Citizenship Amendment Act 2019, এই আইনটা শুধু হিটলারের ইহুদী বিদ্বেষের সাথেই তুলনা করা যায় কারন এই আইন বলছে বাংলাদেশ পাকিস্তান ও আফগানিস্তান থেকে যদি কোহ ধর্মিয় নির্যাতনের শিকার হয়ে ভারতে আসে তবে তাকে নাগরিকত্ব দেয়া হবে তবে কোন মুসলিম এই আইনের সুবিধা পাবে না।

মোদি যখন ঢাকায় ঠিক সেই সময়ে পশ্চিম বাংলায় ইলেকশন হচ্ছে আর বিজেপির অমিত শাহ্ থেকে শুরু করে সবাই মাঠে ময়দানে গলা উঁচু করে বলছে পশ্চিম বাংলায় ১ কোটির উপরে অবৈধ বাংলাদেশি মুসলিম আছে, আর তাহারা ক্ষমতায় আসলে আসামের মত পশ্চিম বাংলায় NRC করে এদের উঁই পোকার মত বিতাড়িত করা হবে। এই মদির বিজেপি আর বলছে পুরা ভারতে নাকি কয়েক কোটি বাংলাদেশি মুসলিম অবৈধ ভাবে আাছে, প্রয়োজনে পুরা ভারতে NRC করে তাদের বিতাড়িত করা হবে।

অনেকেই ভাবতে পারেন এটাতো কাগজ কলমে অবৈধ বলছে, ভারততো তাদের ফেরত পাঠায় নাই তাই ভাবনার কিছু নাই, তাদের জানা উচিত মায়ানমার (বার্মা) নাগরিকত্ব আইন পরিবর্তন করেছিল ১৯৮২ তার পরের ইতিহাস কারই আজানা নাই এবং এই বর্তমান পরিস্থিতিও আমরা সবই জানি।

বাংলাদেশের কয়জন মুসলিম অবৈধভাবে ভারতে যেয়ে স্থায়ী হয় সেটা আমাদের করোই অজানা নয় তবে মোদি সরকারের হিসাবে কয়েক কোটি এবং আসামে NRC করে একটা হিসাবও দেখিয়ে দিয়েছে, এমন কি একজন ৩০ বছর ভারতীয় সামরিক বাহিনীরতে চাকরি করার পরেও তাকে অবৈধ বাংলাদেশ বলে লিস্টে নাম দিয়েছে। ভারতে ক্রমবর্ধমান হারে স্বাভাবিক মুসলিম বৃদ্ধি ( গত ১০ বছরে পশ্চিম বাংলায় ৩% ও আসামে ৪% মুসলিম বৃদ্ধি) কে এই বিজেপি বলছে বাংলাদেশি মুসলিমের অবৈধভাবে প্রবেশ।

এবার আসি আসল কথায়, আমাদের দেশের অনেক বুদ্ধি প্রতিবন্ধী বলতে চাচ্ছে মোদি এখন শুধু বিজেপি নেতা না সে হইলো আমাদের বিপদের বন্ধু ও বৃহত প্রতিবেশী ভারতের প্রধানমন্ত্রী তাই এখন তার হিসাবটা ভিন্ন! এই বেকুবগুলো কি জানে ১৯৭১ এ ইন্দ্রিয়া গান্ধী প্রধানমন্ত্রী হয়ে তার রাষ্ট্রের ক্ষমতা দিয়েই বাংলাদেশ কে হেল্প করেছিল আর আজ এই মদির বিজেপি সরকার তার রাষ্ট্রের ক্ষমতাবলে বাংলাদেশ কে এক গভীর সংকটের দিকে ঠেলে দিচ্ছে।

আর অন্যান্য অমীমাংসিত বিষয় গুলোর কথা না হয় নাই বলি। যে কোন দেশের একটা জিনিস কোন দিনও পরিবর্তন হয় না সেটা হইলো রাষ্ট্রের স্বার্থ আর বাকিসবই পরিবর্তন হয় রাষ্ট্রের স্বার্থের উপরে ভিত্তি করে তার বাস্তব প্রমান হইলো চীন বাংলাদেশ রিলেশন।

জিল্লুর তালুকদার
ফেসবুক থেকে সংগৃহিত

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •