চীন-ভারত বাণিজ্যের পরিমাণ ১২৫৬৬ কোটি ডলার

নিজস্ব প্রতিবেদক || প্রকাশ: ২০২২-০১-১৮ ২০:০৫:৪১ || আপডেট: ২০২২-০১-১৮ ২০:০৬:৫৬

সীমান্ত সংকট নিয়ে পারমাণবিক শক্তিধর দুই প্রতিবেশী দেশ চীন-ভারতের মধ্যে নিষেধাজ্ঞা ও বয়কটের মতো পরিস্থিতিতেও পড়তে হয়েছে দুই দেশের বাণিজ্য সম্পর্ককে।

কিন্তু সেসব পেরিয়ে ২০২১ সাল ছিল দুই দেশের মধ্যকার বাণিজ্য রেকর্ড পরিমাণ বৃদ্ধির বছর। দৃশ্যমান এসব বিবাদ এবং সেনাবাহিনীর অচলাবস্থা সত্ত্বেও গত বছরে চীন-ভারতের মধ্যকার দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য বেড়েছে প্রবল। এর আগে যেখানে এক বছরে সর্বোচ্চ বাণিজ্যের লক্ষ্য ছিল ১০ হাজার কোটি ডলারের। সেই সীমা পেরিয়ে দুই দেশের বাণিজ্য দাঁড়িয়েছে ১২ হাজার ৫৬৬ কোটি ডলারে। যদিও এ বছরেই ভারতের বাণিজ্য ঘাটতি বেড়ে ৬ হাজার ৯০০ কোটি ডলার ছাড়িয়েছে। খবর উইওন নিউজ।

এ বিষয়ে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের তথ্য বলছে, ২০২১ সালে চীন ও ভারতের মধ্যে দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য হয়েছে ১২ হাজার ৫৬৬ কোটি ডলারের। আগের বছর ২০২০ সালের তুলনায় তা বেড়েছে ৪৩ দশমিক ৩ শতাংশ। ওই বছরে দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য দাঁড়িয়েছিল ৮ হাজার ৭৬০ কোটি ডলারে।

চীনের জেনারেল অ্যাডমিনিস্ট্রেশন অব কাস্টমসের দেয়া তথ্য এবং ট্যাবলয়েড গ্লোবাল টাইমসের খবর বলছে, ২০২১ সালে ভারতে ৯ হাজার ৭৫২ কোটি ডলারের পণ্য রফতানি করেছে চীন। রফতানি বৃদ্ধির এ হার ছিল ৪৬ দশমিক ২ শতাংশ। এ সময়ে চীন ভারত থেকে গ্রহণ করে ২ হাজার ৮১৪ কোটি ডলারের পণ্য। আমদানি বৃদ্ধির হার ছিল ৩৪ দশমিক ২ শতাংশ।

ওই বছরে দুই দেশের মধ্যে বাণিজ্য বৈষম্য ছিল ৬ হাজার ৯০০ কোটি ডলার আর সেটা ছিল চীনের দিক থেকেই। এক দশকেরও বেশি সময় ধরে এ ক্রমবর্ধমান বাণিজ্য ঘাটতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে আসছে ভারত। নয়াদিল্লী বারবার ভারতীয় আইটি ও ফার্মাসিউটিক্যাল প্রতিষ্ঠানগুলোর জন্য বাজার খুলে দেয়ার আহ্বান জানিয়ে আসছে বেইজিংয়ের কাছে।

এখনো চীন ও ভারতের মধ্যে সীমান্ত ভাগাভাগি করা লাইন অব অ্যাকচুয়াল কন্ট্রোলের পাহাড়ি অঞ্চলে থাকা সেনাবাহিনীসহ দুই পক্ষেই অন্তত ৫০-৬০ হাজার করে সেনা মোতায়েন রয়েছে।

তবে সীমান্ত ও রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে যতই উত্তেজনা থাকুক, বাণিজ্যে যে শক্তিধর দুটি দেশই একে অন্যের ওপর নির্ভরশীল তা স্পষ্টতই দৃশ্যমান।

সানবিডি/এনজে