মঙ্গলবারের কার্যতালিকায় নিজামীর আপিল

|| প্রকাশ: ২০১৫-১১-০২ ১৯:২৮:২৭ || আপডেট: ২০১৫-১১-০২ ১৯:২৮:২৭

nizamiমানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় মৃত্যুদণ্ডের রায়ের বিরুদ্ধে খালাস চেয়ে জামায়াতের আমির মতিউর রহমান নিজামীর করা আপিল আবেদনের শুনানি সুপ্রিমকোর্টে মঙ্গলবারের কার্যতালিকায় রাখা হয়েছে। কার্যতালিকার ২ নম্বরে রয়েছে মামলাটির শুনানি।

প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বে আপিল বিভাগের চার বিচারপতির বেঞ্চে এই আপিলের শুনানি হওয়ার কথা রয়েছে। বেঞ্চের অন্য সদস্যরা হলেন বিচারপতি নাজমুন আরা সুলতানা, বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন ও বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী।

ট্রাইব্যুনালের রায়ের বিরুদ্ধে আপিল বিভাগে আসা এটি ষষ্ঠ মামলা, যার চূড়ান্ত শুনানি শুরু হয় গত ৯ সেপ্টেম্বর। ওই দিন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম আদালতে শুনানি শুরু করেন।

মামলার পেপারবুক থেকে নিজামীর বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের আদেশ উপস্থাপন করেন তিনি। এরপর নিজামীর বিরুদ্ধে আনা প্রথম অভিযোগের পক্ষে তিন সাক্ষীর বক্তব্য পেপারবুক থেকে উপস্থাপন করেন অ্যাডভোকেট অন রেকর্ড জয়নুল আবেদীন। আসামিপক্ষে তার সঙ্গে ছিলেন  আইনজীবী তাজুল ইসলাম ও শিশির মনির।

তাবে আদালত উভয়পক্ষের আইনজীবীদের লিখিত যুক্তিতর্কের সারসংক্ষেপ জমা দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। শুনানি শেষে নিজামীর আপিল শুনানি ৩ নভেম্বর পর্যন্ত মুলতবি করা হয়।

নিজামীর আইনজীবী মো.শিশির মনির সাংবাদিকদের বলেন, ‘৩ নভেম্বর থেকে যথারীতি এ মামলার পেপার বুক উপস্থাপন শুরু হবে।’ এর আগে ট্রাইব্যুনালের রায়ের বিরুদ্ধে আনা আরো ৫টি মামলা আপিলে নিস্পত্তি হয়েছে।

নিজামীকে মৃত্যুদণ্ড দিয়ে মুক্তিযুদ্ধকালীন মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলার দেয়া রায়ের বিরুদ্ধে ২০১৪ সালের ২৩ নভেম্বর আপিল দায়ের করা হয়েছে। ৬ হাজার ২৫২ পৃষ্ঠার ডকুমেন্ট পেশ করে তাতে ১৬৮টি কারণ উল্লেখ করে দণ্ড থেকে খালাস চেয়ে সুপ্রিমকোর্টের আপিল বিভাগের সংশ্লিষ্ট শাখায় অ্যাডভোকেট অন রেকর্ড জয়নুল আবেদীন তুহিন এ আপিলটি দাখিল করেন। ১২১ পৃষ্ঠায় মূল আপিল আবেদনের সঙ্গে ৬ হাজার ২৫২ পৃষ্ঠার নথিপত্র দাখিল করা হয়েছে। মূল আপিলে ১৬৮ টি গ্রাউন্ড পেশ করে দণ্ড থেকে খালাস চাওয়া হয়েছে।

এবিষয়ে অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেন, ট্রাইব্যুনাল নিজামীর সর্বোচ্চ সাজার যে রায় দিয়েছেন, তাতে রাষ্ট্রপক্ষ সন্তুষ্ট। আসামির আপিল শুনানির বিপরীতে যুক্তি পেশ করবে রাষ্ট্রপক্ষ। ট্রাইব্যুনালে দেয়া  দণ্ডের পক্ষে বক্তব্য উপস্থাপন করে তা বহাল রাখতে আর্জি পেশ করা হবে।