বয়স ৩০ হলো? যে পরীক্ষাগুলো করানো জরুরী এখন

|| প্রকাশ: ২০১৫-০৯-২২ ২২:০১:৩১ || আপডেট: ২০১৫-০৯-২২ ২২:০৪:০৩

13_Truck_Petrolium_041213

বয়সের সঙ্গে সঙ্গে বাড়ে শারীরিক জটিলতা৷ কিছু রোগের সূত্রপাত শুরু হয় এই বয়সের আধিক্যের সঙ্গে৷ তাই বয়সের সঙ্গে তাল মিলিয়ে নজর দিতে হয় শরীরে৷ আর এই সব রোগের সূচনা হয় ৩০ বছর বয়স থেকেই৷ তাই এই সময় থেকেই কিছু পরীক্ষা করে রাখা প্রয়োজন৷ এইসব পরীক্ষা আপনার শারীরিক সুস্থতা বুঝতে সাহায্য করবে৷ দেখে নিন চিকিৎসকদের মতে কি কি পরীক্ষা প্রয়োজন আপনার শরীর সুস্থ আছে কি না জানতে৷

১। ডায়াবেটিস
ডায়াবেটিস এমন একটি রোগ যা যে কোনও সময় যে কারও হতে পারে। আপনার বয়স যদি ৩০ হয় এবং এখন পর্যন্ত ডায়াবেটিস পরীক্ষা না করে থাকেন তবে আজই পরীক্ষা করুন। নারী এবং পুরুষ উভয়ের জন্য ৩০ বছর বয়সের পর অব্যশই ডায়াবেটিস পরীক্ষা করা জরুরী। যেসব নারী অতিরিক্ত ওজন সমস্যায় ভুগছেন এবং সন্তানসম্ভবা, তাদের টাইপ টু ডায়াবেটিসের ঝুঁকি বেশি থাকে। তাদের এফপিজি, ওজিটি এবং এইচবিএওয়ানসি অথবা গ্লাইকেটেড হিমোগ্লোবিন টেস্ট করাও জরুরি।

২। থাইরয়েড
৩০ বছর বয়সের পর অব্যশই থাইরয়েডের পরীক্ষা করা জরুরি। শরীরে হাইপার থাইরয়েডিজম, হাইপো থাইরয়েডিজম, থাইরয়েড ক্যানসার, থাইরয়েডিটিস আছে কিনা জানতে এই পরীক্ষা করা হয়। আর এগুলো দেখতে এফটিফোর, টিপিও, টিএসএইচ, মাইক্রোসোমাল অ্যান্টিবডি, এফটিথ্রি, এবং এটিএ থাইরোগ্লোবিউলিন অ্যান্টিবডি পরীক্ষা করা হয়।

৩। অ্যানিমিয়া
এই রোগটি দেখা যায় যখন রক্তে আয়রন, ভিটামিন বি ১২, ফলিক এসিড, আয়রনের অভাব হয়। রক্ত ভালো আছে কিনা জানতে কমপ্লিট ব্লাড কাউন্ট (সিবিসি), ভিটামিন বি ১২ টেস্ট, সিরাম আয়রন টেস্ট, টিআইবিসি (টোটাল আয়রন বাইন্ডিং ক্যাপাসিটি), ট্রান্স ফেরিন এবং আয়রন স্যাচুরেশন টেস্ট করানো উচিত।

৪। সিবিসি টেস্ট
সিবিসি টেস্ট বা কমপ্লিট ব্লাড কাউন্ট টেস্ট অন্তত বছরে একবার করা উচিত। এই পরীক্ষা করার ফলে হিমোগ্লোবিন, সাদা কণিকা (সেল) এবং প্লেটেলেট গণনা করা হয়। শরীরের রক্তের কী অবস্থা তা সিবিসি চেকআপের মাধ্যমে জানা যায়।

৫। এসটিডি
৩০ বছর বয়স হলে এইচিআইভি পরীক্ষা করা প্রয়োজন। সাধারণত এইচআইভি/ এইডস, হেপাটাইটিস বি, সিফিলিস, হারপেস এবং গনোরিয়া রোগে এসটিডি পরীক্ষা করা হয়।