সব পেশার নারীদের জন্য এবি ব্যাংকের ‘সম্পূর্ণা’

প্রকাশ: ২০১৫-১১-২৪ ১৬:১১:৩০ আপডেট: ২০১৫-১১-২৪ ১৬:১১:৩০

ab-bankবাংলাদেশের নারীরা যোগ্যতার বলে চিকিৎসক, প্রকৌশলী, ব্যাংকার, আইনজীবী, পাইলটসহ সব পেশায় যোগ্যতার প্রমাণ রেখে চলেছেন। সাহসী এসব নারীদের জন্য ব্যাংকিং মেলায় ‘সম্পূর্ণা’ নামের একটি বিশেষ সঞ্চয়ী হিসাব নিয়ে এসেছে এবি ব্যাংক।

গৃহিণী, নারী উদ্যোক্তা, চাকরিজীবী, শিক্ষিকা, স্বনিয়োজিত যেকোনো নারী এ বিশেষ হিসাব খুলতে পারবেন। এতে সর্বোচ্চ ৭ শতাংশ পর্যন্ত ইন্টারেস্ট দেওয়া হবে।

মঙ্গলবার (২৪ নভেম্বর) বাংলা একাডেমিতে শুরু হওয়া ব্যাংকিং মেলা বাংলাদেশ-২০১৫-এ এবি ব্যাংকের প্রিন্সিপাল অফিসার কাজী আশফাক-উজ-জামান এ তথ্য জানান।

দেশের ব্যাংকগুলোর ঋণ ও আমানত স্কিমসহ বিভিন্ন ধরনের সেবা নিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংক প্রথমবারের মতো পাঁচ দিনব্যাপী (২৪-২৮ নভেম্বর) এ মেলার আয়োজন করেছে।

তিনি জানান, নারীদের জন্য সম্পূর্ণ ব্যতিক্রমী এ হিসাব নারীর ক্ষমতায়নে ভূমিকা রাখবে। এতো বেশি ইন্টারেস্ট কোনো ব্যাংক এ মূহুর্তে দিচ্ছে না বলে দাবি করেন তিনি।

তিনি আরো জানান, এ হিসাবধারী নারী ফ্রি ডেবিট কার্ড, এক লাখ ৮৫ হাজার টাকা পর্যন্ত ফ্রি বিমা সুবিধা পাবেন। হিসাব পরিচালনায় নেই কোনো খরচ। এ হিসাবে ব্যাপক সাড়া পাওয়া যাবে বলে আশা করেন তিনি।

এবি ব্যাংকের স্টলে ‘সম্পূর্ণা’ অ্যাকাউন্ট খোলার বিষয়ে বিস্তারিত জানার পর ধানমণ্ডির ইউসুফ হাই স্কুলের শিক্ষিকা নুসরাত জাহান বাংলানিউজকে বলেন, নারীদের জন্য এতো বেশি ইন্টারেস্ট সুবিধা নিয়ে অন্য কোনো ব্যাংকে স্কিম নেই।

এবি ব্যাংকের ব্যতিক্রমধর্মী উদ্যোগ তুলে ধরে কাজী আশফাক-উজ-জামান বলেন, প্রান্তিক চাষিদের ব্যাংকিং সেবার আওতায় আনতে একাধিক এনজিওর মাধ্যমে কৃষি ঋণ প্রদান করে আসছে।

বস্ত্র ও চামড়া শিল্পের শ্রমিকদের জন্য ১০ টাকার ব্যাংক হিসাব খোলার ব্যবস্থা রয়েছে। যেখানে ফ্রি ডেবিট কার্ডসহ বেশ কিছু সুবিধা পাচ্ছেন। এসব শিল্প যেসব এলাকায় রয়েছে সেখানে খুব ভালো সাড়া পাওয়া যাচ্ছে বলেও জানান তিনি।

এছাড়া সব শাখায় স্কুল ব্যাংকিং চালু রয়েছে। শিগগিরই বড় পরিসরে আর্থিক অন্তর্ভুক্তিমূলক সেবা প্রদানের জন্য এজেন্ট ব্যাংকিং কার্যক্রম শুরু হবে।

এ কর্মকর্তা জানান, ইন্টারনেট ব্যাংকিংয়ের ক্ষেত্রেও এবি ব্যাংক এগিয়ে রয়েছে। যেকোনো গ্রাহক যেকোনো সময় যেকোনো জায়গা থেকে অনলাইনে এর সুবিধা পাচ্ছেন। বর্তমানে ইন্টারনেট ব্যাংকিংয়ের আওতায় রয়েছে ২০ হাজার ৫৯৪ জন গ্রাহক।

গ্রাহকরা ইন্টারনেট ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে মিনি স্টেটমেন্ট, অ্যাকাউন্ট ইতিবৃত্ত, অ্যাকাউন্ট স্টেটমেন্ট, যেকোনো অ্যাকাউন্টে ফান্ড ট্রান্সফার, ইউটিলিটি বিল পরিশোধ ও মোবাইল টপ আপ করতে পারছেন।

তিনি আরো জানান, কৃষি ঋণের ক্ষেত্রেও আমরা এগিয়ে রয়েছি। এবি ব্যাংকের প্রতিটি শাখায় কৃষি ঋণ দেওয়া হয়। শস্য, শস্য গুদামজাত ও বাজারজাতকরণ, সেচ যন্ত্রপাতি ও কৃষি যন্ত্রপাতি ক্রয়, মৎস্য সম্পদ ও প্রাণিসম্পদ, পোল্ট্রি ও আত্ম-কর্মসংস্থানমূলক ঋণ দেওয়া হয়। এ ঋণের মাধ্যমে এবি ব্যাংক প্রান্তিক জনগণের কাছে পৌঁছে গেছে।

এসএমই ঋণের ক্ষেত্রেও এগিয়ে আমরা। ১০ লাখ থেকে সর্বোচ্চ ৫ কোটি টাকা পর্যন্ত ঝামেলামুক্ত সহজ শর্তে দ্রুত এসব ঋণ দেওয়া হয়। ছোট পুঁজি ঋণ, প্রসার ঋণ, গতি ঋণ, উদ্যোগ ঋণ, অপরাজিতা ঋণ, দ্বিগুণ ঋণ, সাথী ঋণ এক্ষেত্রে এগিয়ে।

এবি ব্যাংক প্রান্তিক চাষি, দিনমজুর, বস্তিবাসী, সংখ্যাগরিষ্ঠ কর্মজীবী নারী এবং স্কুলগামী ছাত্রছাত্রীদের উদ্দেশ্য করে আর্থিক অন্তভুর্ক্তি কার্যক্রম বর্তমানে পরিচালিত হচ্ছে।

এবি ব্যাংকের বর্তমানে ঋণ হিসাব ২১ হাজার ৫২১টি, আমানত হিসাব ৪ লাখ ৩৪ হাজার ৭৪৪টি, শাখার সংখ্যা ৯৩টি, ২৪৭টি এটিএম বুথ রয়েছে।