৮০৫ কোটি টাকা ব্যয়ে প্রস্তুত নতুন বই

প্রকাশ: ২০১৫-১১-২৫ ২১:৩৯:০৫ আপডেট: ২০১৫-১১-২৫ ২১:৩৯:০৫

Book-Festival-12145আগামী ২০১৬ শিক্ষাবর্ষে প্রাথমিক, মাধ্যমিক, ইবতেদায়ী, দাখিল ও কারিগরি স্তরের শিক্ষার্থীদের মাঝে সরকারের বিনামূল্যে বই বিতরণে ব্যয় হবে ৮০৫ কোটি টাকা। আগামী শিক্ষাবর্ষে মোট ৩ কোটি ৯১ লাখ ৯৪ হাজার ৯০৩ জন শিক্ষার্থীর ২৯১টি বিষয়ের ৩৩ কোটি ৪৫ লাখ ১৮ হাজার ৬৩৫টি বই বিতরণে সরকারের এ ব্যয় হবে।

বই প্রস্তুত ও বিতরণকারী প্রতিষ্ঠান জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোডের্র (এনসিটিবি) চেয়ারম্যান অধ্যাপক নারায়ন চন্দ্র পাল জানান, আগামী বছরের ২ জানুয়ারি বই উৎসবের মাধ্যমে সারাদেশে বিনামূল্যে ওই বই বিতরণ করা হবে।

তিনি বলেন, বর্তমান সরকার বিগত ৭ বছর যাবত বিনামূল্যে বই বিতরণের কারণে শিক্ষাক্ষেত্রে আজ আমূল পরিবর্তন এসেছে। শেখ হাসিনার সরকারের যুগান্তকারী এ সিদ্ধান্তের কারণে বর্তমানে প্রাথমিক স্তরে শিক্ষার্থীর উপস্থিতি প্রায় শতভাগ, মাধ্যমিক স্তরেও ঝরে পড়ার হার আগের যে কোন সময়ের চেয়ে অনেক কমে এসেছে।

এনসিটিবি চেয়ারম্যান বলেন, আগামী শিক্ষাবর্ষে প্রায় ৪ কোটি শিক্ষার্থীর মাঝে সরকার প্রায় সাড়ে ৩৩ কোটি বই বিতরণ করবে, আর এতে ব্যয় হবে ৮০৫ কোটি টাকা। তিনি বলেন, এরমধ্যে প্রাথমিক (বাংলা ও ইংরেজি ভার্সন) স্তরের ২ কোটি ৩১ লাখ ৭০ হাজার ৩৫১ জন শিক্ষার্থীর ৩৩টি বিষয়ের ১০ কোটি ৮৭ লাখ ৪০ হাজার ১১টি বই প্রস্তুত ও বিতরণে সরকারের ব্যয় হচ্ছে ৩০০ কোটি টাকা। আর মাধ্যমিক (বাংলা ও ইংরেজি ভার্সন) স্তরের ১ কোটি ৪ লাখ ৬০ হাজার ৮৯৩ জন শিক্ষার্থীর ১১৪টি বিষয়ের ১৬ কোটি ৩০ লাখ ৪ হাজার ৩৭৩টি বই প্রস্তুত ও বিতরণে ব্যয় হচ্ছে ৩৫০ কোটি টাকা।

চেয়ারম্যান নারায়ন পাল আরোও বলেন, দাখিল ও দাখিল (ভোকেশনাল) এর ২৩ লাখ ৪৪ হাজার ৪৬৯ জন শিক্ষার্থীর ৮৮টি বিষয়ের ৩ কোটি ৪৬ লাখ ৭৮ হাজার ৮২৯টি বইয়ের জন্য ৭০ কোটি এবং ইবতেদায়ীর ২৭ লাখ ৩ হাজার ৯৮৪ জন শিক্ষার্থীর ১ কোটি ৯২ লাখ ৪৭ হাজার ৪৮০টি বইয়ের জন্য ৫০ কোটি টাকা ব্যয় হবে।

তিনি এসএসসি (ভোকেশনাল) ও প্রাক-প্রাথমিকের শিক্ষার্থীদের কথা উল্লেখ করে বলেন, ভোকেশনালের ১ লাখ ৮৭ হাজার ১৫৩ জনের ১৮টি বিষয়ের ২২ লাখ ৭১ হাজার ৮৩৬টি বই প্রস্তুতে ৫ কোটি এবং প্রাক-প্রাথমিকের ৩ লাখ ২৮ হাজার ৫৩ জন শিক্ষার্থীর ২টি বিষয়ের ৬৫ লাখ ৭৬ হাজার ১০৬টি বই প্রস্তুতে ব্যয় হচ্ছে ৩০ কোটি টাকা।

চেয়ারম্যান বলেন, শিক্ষা বিস্তারে সরকারের গৃহীত নানামুখী উদ্যোগ অব্যাহত থাকলে খুব শিগগিরই দেশে শিক্ষিতের হার শতভাগে পৌঁছতে বেশি সময় লাগবে না। শিক্ষাক্ষেত্রে বর্তমান সরকারের যে সাফল্য তার পুরো কৃতিত্ব প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদের প্রাপ্য।

সানবিডি/ঢাকা/রাআ