১২ বছর পর অনুমোদন পেল ব্যাংকের আইপিও

সান বিডি ডেস্ক || প্রকাশ: ২০২০-১১-১৮ ১৯:০১:৫৭ || আপডেট: ২০২০-১১-১৯ ০৮:২৭:২৭

দীর্ঘ ১২ বছর পর প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) পুঁজিবাজারে আসছে নতুন প্রজন্মের ব্যাংক এনআরবিসি ব্যাংক লিমিটেড। অভিহিত মূল্য ১২ কোটি শেয়ার ছেড়ে পুঁজিবাজার থেকে ১২০ কোটি টাকা নিতে চায় প্রতিষ্ঠানটি। পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) ৭৪৯তম ব্যাংকটির আইপিওর অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

ডিএসই সূত্র মতে, এর আগে ২০০৮ সালের ২২ সেপ্টেম্বর ব্যাংক খাতের ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়েছিলো। আইপিও প্রক্রিয়ায় ১১৫ কোটি টাকা মূলধন সংগ্রহ করেছিল ব্যাংকটি। দেশের পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত প্রথম ব্যাংক এবি। প্রথম প্রজন্মের এ ব্যাংক তালিকাভুক্ত হয় ১৯৮৩ সালে। এরপর তালিকাভুক্ত হয় ন্যাশনাল, উত্তরা, পূবালী, ইসলামী ও আইএফআইসি ব্যাংক। বর্তমানে প্রধান পুঁজিবাজার ডিএসইতে তালিকাভুক্ত ব্যাংক ৩০টি।

এনআরবিসি আইপিওতে এলেও সর্বশেষ দফায় কাছাকাছি সময়ে ব্যাংকিং কার্যক্রম চালুর অনুমোদন পাওয়া চতুর্থ প্রজন্মের আরও আট ব্যাংক এখনও পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্তির প্রক্রিয়া শুরু করেনি। ব্যাংক স্থাপনের শর্ত হিসেবে লাইসেন্স গ্রহণের তিন বছরের মধ্যে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হওয়ার বাধ্যবাধকতা রয়েছে। তবে লোকসানসহ নানা কারণ দেখিয়ে বাকি ব্যাংকগুলো বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছ থেকে এ বিষয়ে সময় বাড়িয়ে নিচ্ছে।

বিদেশি বাদে বর্তমানে দেশি বাণিজ্যিক ব্যাংকের মধ্যে নতুন আটটিসহ মোট ২৪টি তালিকাভুক্ত নয়। এর মধ্যে রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন ব্যাংক আটটি। অন্যদিকে সম্প্রতি বাণিজ্যিক কার্যক্রম শুরু করা বেঙ্গল কমার্শিয়াল ব্যাংক এবং বাণিজ্যিক কার্যক্রম শুরুর অপেক্ষায় থাকা বাকি দুই ব্যাংক সিটিজেন ও পিপলসের বাধ্যবাধকতার সময় শেষ হয়নি।

বিএসইসি সূত্র মতে, আইপিওর মাধ্যমে এনআরবিসি ১০ টাকা ইস্যু মূল্যের ১২ কোটি সাধারণ শেয়ার বিক্রি করবে। এর মাধ্যমে পুঁজিবাজার থেকে ১২০ কোটি টাকা তুলবে এনআরবিসি ব্যাংক লিমিটেড। এই টাকা দিয়ে বাণিজ্যিক স্পেস ক্রয়, লোন পরিশোধ, ডিজিটাল হেলথকেয়ার প্লাটফর্ম উন্নয়ন এবং আইপিও খরচ পরিচালনা করবে ব্যাংকটি।

৩০ জুন ২০১৯ সমাপ্ত অর্থবছরে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা ৫৫ পয়সা। আর শেয়ারপ্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভি) রয়েছে ১৩ টাকা ৮৬ পয়সা।

এনআরবিসি সূত্র মতে,২০১৩ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি যৌথ মূলধন কোম্পানি ও ফার্মসমূহের নিবন্ধক (আরজেএসসি) থেকে অনুমোদন পায় ব্যাংকটি। একই বছরের ১০ মার্চ বাংলাদেশ ব্যাংক অনুমোদন দেয় এনআরবিসিকে। বর্তমানে ব্যাংকটির পরিশোধিত মূলধন ৫৮২ কোটি টাকা।

ব্যাংকটিকে পুঁজিবাজারে আনতে ইস্যু ম্যানেজার হিসেবে কাজ করছে এশিয়ান টাইগার ক্যাপিটাল পার্টনার্স ইনভেস্টমেন্ট ও এএফসি ক্যাপিটাল লিমিটেড।

পুঁজিবাজারের সব খবর পেতে জয়েন করুন 

Sunbd News–ক্যাপিটাল নিউজক্যাপিটাল ভিউজস্টক নিউজ

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ