ঈদের বিশেষ ট্রেন সার্ভিস কাল থেকে

প্রকাশ: ২০১৫-০৯-২১ ০৫:২১:৫৯ আপডেট: ২০১৫-০৯-২১ ০৫:২২:৩১

Trenপ্রতিদিন অতিরিক্ত ৮০ হাজার যাত্রীসহ আড়াই লাখ যাত্রী বহনের টার্গেট নিয়ে আগামীকাল মঙ্গলবার (২২ সেপ্টেম্বর) থেকে ৭ জোড়া বিশেষ আন্ত:নগর ট্রেন সার্ভিস শুরু হচ্ছে। এ সার্ভিস ঈদের তিন দিন আগে থেকে শুরু হয়ে পরের সাত দিন ( ২৭ সেপ্টেম্বর থেকে ৩ অক্টোবর ) পর্যন্ত চলবে।

এসব বিশেষ ট্রেন সার্ভিসের মধ্যে দেওয়ানগঞ্জ স্পেশাল: ঢাকা- দেওয়ানগঞ্জ- ঢাকা চলবে ২২ সেপ্টেম্বর থেকে ২৪ সেপ্টেম্বর ও  ফিরতি ২৭ সেপ্টেম্বর থেকে ৩ অক্টোবর পর্যন্ত, চাঁদপুর স্পেশাল-১: চট্টগ্রাম-চাঁদপুর-চট্টগ্রাম চলবে ২২ সেপ্টেম্বর-২৪ সেপ্টম্বও ও ২৭ সেপ্টেম্বও থেকে ৩ অক্টোবর পর্যন্ত।

এছাড়া  চাঁদপুর স্পেশাল-২: চট্টগ্রাম-চাঁদপুর-চট্টগ্রাম চলবে ২২ সেপ্টেম্বর-২৪ সেপ্টেম্বর ও ২৭ সেপ্টেম্বর থেকে ৩ অক্টোবর, পার্বতীপুর স্পেশাল: পার্বতীপুর-ঢাকা-পার্বর্তীপুর চলবে ২২-২৪ সেপ্টেম্বর ও ২৭ সেপ্টেম্বর থেকে ৩ অক্টোবর, খুলনা স্পেশাল : খুলনা-ঢাকা-খুলনা রুটের ট্রেন চলবে ২২ সেপ্টেম্বর- থেকে ২৪ সেপ্টেম্বর ও ২৭ সেপ্টেম্বর থেকে ৩ অক্টোবর পর্যন্ত।

ইতোমধ্যে গতকাল ২০ সেপ্টেম্বর থেকে ঈদের পূর্বদিন পর্যন্ত সকল আন্ত:নগর ট্রেনের ডে-অফ বাতিল করা হয়েছে।

আসন্ন ঈদে ঘরমুখো মানুষের স্বাচ্ছন্দ্য ভ্রমণ নিশ্চিত করতে সৈয়দপুর ও চট্টগ্রামের পাহাড়তলী রেলওয়ে কারখানায় রেকর্ডসংখ্যক যাত্রীবাহী ১৩৯টি কোস মেরামত করা হয়েছে । ঈদের আগে ও পরে পূর্ব ও পশ্চিম রেলে বাড়তি ৮০ হাজার যাত্রী পরিবহন করার লক্ষ্য নিয়ে আন্তঃনগর ট্রেনের সঙ্গে অতিরিক্ত কোচ হিসেবে যুক্ত করা হবে। এসব কোচ ইতোমধ্যে রেলওয়ের ট্রাফিক বিভাগের হাতে হস্তান্তর করা হয়েছে বলে রেলওয়ে সূত্রে জানা গেছে।

বর্তমানে বাংলাদেশ রেলওয়েতে দৈনিক ১৯৯ টি লোকোমেটিভের ( ইঞ্জিন)  মধ্যে ঈদ উপলক্ষে অতিরিক্ত কারখানায় মেরামত করা ২৫টি ইঞ্জিন এই লোকোমোটিভ বহরে যুক্ত হবে। ট্রেন দুর্ঘটনা রোধে রেলওয়ের সংশ্লিস্ট সকল কর্মকর্তা ও কর্মচারীদেরকে যে কোন দুর্ঘটনা মোকাবেলার জন্য প্রস্তুত রাখা হয়েছে।

জানা গেছে, চলন্ত ট্রেনে, স্টেশনে বা রেললাইনে কোথাও কোন নাশকতামূলক কর্মকাণ্ড যাতে না ঘটে এ ব্যাপারে ওয়েম্যান দ্বারা নিবির পর্যবেক্ষণ  করা হবে এবং ট্রেনগুলোতে জিআরপি,আরএনবি, স্থানীয় পুলিশ, র‌্যাব ও বিজিবি মোতায়েনসহ ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হবে বলে রেলওয়ের সূত্র জানায়।

পূর্ব ও পশ্চিমাঞ্চলের রুটে যেসব ট্রেন চলছে তার সঙ্গে ১৪ টি বিশেষ ট্রেন যুক্ত হবে। এসব বিশেষ ট্রেনে ১৩৯টি কোচের মধ্যে ঢাকা-চট্টগ্রাম রুটে ৭৫টি এবং সৈয়দপুর রুটে (পশ্চিমাঞ্চল) ৬৩ টি বগি যুক্ত হবে।

রেলপথমন্ত্রী মুজিবুল বলেন, ‘রেলের সীমিত সম্পদের মধ্যেই ঈদের সময় দৈনিক আড়াই লাখ যাত্রী পরিবহনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। অন্যান্য সময় দিনে ১ লাখ ৭০ হাজার যাত্রী পরিবহন করা হয়।’

ঈদের সময় কালোবাজারি রোধ ও যাত্রীদের নিরাপত্তায় রেলওয়ে পুলিশ, জিআরপিসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী কাজ করবে বলেও জানান মন্ত্রী।