একটি বাড়ি ও একটি খামার প্রকল্পের সুফল জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছানোর আহ্বান

|| প্রকাশ: ২০১৬-০১-২১ ২০:১২:৫৫ || আপডেট: ২০১৬-০১-২১ ২০:১২:৫৫

mossaraf1_99422একটি বাড়ি ও একটি খামার প্রকল্পকে প্রাতিষ্ঠানিকীকরণের মাধ্যমে প্রকল্পের সুফল জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছাতে হবে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন।

এ প্রকল্পে দেশের ১ কোটি ২০ লাখ অস্বচ্ছল মানুষ প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে উপকৃত হচ্ছে। প্রকল্প বাস্তবায়নে জনপ্রতিনিধিদের আরো সম্পৃক্তকরণ ও উদ্বুদ্ধকরণের ওপর জোর দেন তিনি। এতে করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বপ্নের প্রকল্পটি একটি মডেল হিসেবে দেশে-বিদেশে সমাদৃত করা সম্ভব হবে। বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে “একটি বাড়ি, একটি খামার” প্রকল্পের জাতীয় স্টিয়ারিং কমিটির ৩য় সভায় সভাপতিত্বকালে এসব কথা বলেন তিনি।

এ সময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন এলজিআরডি ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী মো. মসিউর রহমান রাঙ্গা, মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি, স্টিয়ারিং কমিটির সদস্য, সংসদ সদস্য, বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগের সচিবসহ স্টিয়ারিং কমিটির সদস্যরা। প্রকল্পের সার-সংক্ষেপ উপস্থাপন করেন পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় বিভাগের সচিব এম এ কাদের সরকার ও প্রকল্প পরিচালক ড. প্রশান্ত কুমার রায়।

মন্ত্রী বলেন, জেলা ও উপজেলাসহ তৃণমূল পর্যায়ে প্রকল্প কর্মকর্তা কর্মচারীদের কাজের গুণগত মান ও গতি বাড়াতে হবে। তিনি প্রকল্পের আওতায় গৃহীত কার্যক্রম ও সাফল্যগুলো ব্যাপকভাবে প্রচার-প্রচারণার ওপর গুরুত্বারোপ করেন। এতে করে এ প্রকল্প দ্বারা প্রকৃত সুবিধাভোগীদের সেবাদান বাড়ানো সম্ভব হবে।

প্রতিমন্ত্রী রাঙ্গা বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণে প্রকল্পটি সময়োপযোগী ও বাস্তবসম্মত। এটি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবনের প্রজ্ঞা, মেধা ও মননের ফসল। এটিকে বাস্তবায়নে যেকোন চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় সমন্বিত ভূমিকা রাখতে হবে।

সভায় জানানো হয়, জুলাই ২০০৯-জুন ২০১৬ মেয়াদে প্রকল্পটি বাস্তবায়নের ফলে দেশের দারিদ্রতা হ্রাসে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখছে। এ প্রকল্পে উপকারভোগীর সংখ্যা প্রায় ২৪ লাখ। এতে ১ কোটি ২০ লাখ অস্বচ্ছল মানুষ প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে উপকৃত হচ্ছে। উপকারভোগীদের নিজস্ব সঞ্চয় জমা ৮৫৭ কোটি টাকা। উপকারভোগীদের নিজস্ব সঞ্চয়ের বিপরীতে উৎসাহ বোনাস প্রদান করা হয়েছে ৭১২ কোটি ২৮ লাখ টাকা এবং তহবিলের পরিমাণ ২৬৫৫ কোটি টাকা।

সানবিডি/ঢাকা/আহো