জাবিতে শিক্ষক লাঞ্ছনা: অভিযুক্ত তিন ছাত্রলীগ কর্মীকে কারণ দর্শানোর নোটিশ

|| প্রকাশ: ২০১৬-০১-২৩ ২০:৩৯:০৫ || আপডেট: ২০১৬-০১-২৩ ২০:৩৯:০৫

শিক্ষক-নিয়োগ-দেবে-শাবিপ্রবি-ও-জাহাঙ্গীরনগর-বিশ্ববিদ্যালয়1জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের অধ্যাপক মোজাহিদুল ইসলামকে লাঞ্ছিত করার ঘটনায় অভিযুক্ত তিন ছাত্রলীগকর্মীকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

সোমবার বিকেলে তাদের কাছে এই নোটিশ পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় বলে জানান বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক তপন কুমার সাহা। তিনি বলেন, “অধ্যাপক মোজাহিদ শনিবার দুপুরে প্রক্টর বারাবর ওই তিন ছাত্রের বিরুদ্ধে একটি অভিযোগপত্র দেন। এর পরিপ্রেক্ষিতেই প্রক্টরিয়াল টিমের জরুরী বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হলো।”

“অভিযুক্তদের তিন কর্মদিবসের মধ্যে নোটিশের জবাব দিতে হবে। জবাব দিতে ব্যর্থ হলে বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের আচরণবিধির ৪ ও ৫ নং ধারা অনুযায়ী তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।”

অভিযুক্ত তিন ছাত্রলীগ কর্মী হলেন: সরকার ও রাজনীতি বিভাগের ৪০তম আবর্তনের শিক্ষার্থী মো. আবু সাদাত সায়েম, ৪৩তম আবর্তনের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের জামশেদ আলম ও বাংলা বিভাগের শিক্ষার্থী জাহিদ হাসান। এরা সবাই বিশ্ববিদ্যালয়ের আল-বেরুনী হলের আবাসিক শিক্ষার্থী।

এর আগে শনিবার দুপুরে ছাত্রীর লাঞ্ছনা ঠেকাতে গিয়ে লাঞ্ছিত হওয়া শিক্ষক ইতিহাস বিভাগের অধ্যাপক মোজাহিদুল ইসলাম লাঞ্ছনার বিচার চেয়ে প্রক্টর বরাবর একটি লিখিত অভিযোগপত্র দেন।

ওই অভিযোগপত্রে তিনি বলেন, “বৃহস্পতিবার বিকাল পাঁচটার দিকে চৌরঙ্গীর মোড়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের তিনজন শিক্ষার্থী কর্তৃক বহিরাগত এক ছাত্রী নিপীড়ন ও তার বন্ধু মারধরের শিকার হয়। উক্ত ঘটনা থামাতে গিয়ে আমি ওই তিন শিক্ষার্থীর দ্বারা লাঞ্ছনার শিকার হই।”

“উক্ত ঘটনা সম্পর্কে আমার সুনির্দিষ্ট অভিযোগগুলো হলো- ‘একজন পুরুষ শিক্ষার্থী কর্তৃক একজন নারী শিক্ষার্থী আক্রান্ত হয়, যা স্পষ্টতঃ যৌন নিপীড়ন’, ‘দু’জন শিক্ষার্থী কর্তৃক ওই মেয়েটির সঙ্গে থাকা ছেলেটিকে মারধর করা হয়’ এবং ‘ঘটনা থামাতে গিয়ে আমি আক্রমণকারী তিন শিক্ষার্থী দ্বারা লাঞ্ছিত হই।” অধ্যাপক মোজাহিদ এসব অভিযোগ তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য প্রক্টরকে অনুরোধ জানান।

নোটিশের বিষয়ে জানতে চাইলে ছাত্রলীগকর্মী আবু সায়েম বলেন, “আমরা নোটিশ পেয়েছি। তিনজন মিলেই প্রক্টর অফিস থেকে নোটিশটি নিয়ে এসেছি।”

এদিকে শনিবার দুপুরে এক প্রতিবাদ লিপিতে অভিযুক্ত এই তিন ছাত্রলীগকর্মী দর্শনার্থী ছাত্রকে মারধরের বিষয়টি স্বীকার করলেও ছাত্রীর ওড়না ধরে টানাটানি ও শিক্ষক লাঞ্ছনার বিষয়টি অস্বীকার করেন।

সানবিডি/ঢাকা/রাআ