আন্তর্জাতিক বাজার হারানোর শঙ্কা

|| প্রকাশ: ২০১৫-১০-০৪ ১৯:৩১:২২ || আপডেট: ২০১৫-১০-০৪ ১৯:৩১:২২

BGMEAএকের পর এক বিদেশি নাগরিক হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় বিদেশি ক্রেতা ও বিনিয়োগকারীরা বাংলাদেশ থেকে মুখ ফিরিয়ে নেওয়ার আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন দেশের শীর্ষস্থানীয় ব্যবসায়ী নেতারা।

তাদের মতে, এমন ঘটনায় বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক পর্যায়ে ব্যাপক ইমেজ সংকটে পড়বে। ফলে আস্থা হারাবে বিদেশি বিনিয়োগকারীরা। বিশেষ করে তৈরি পোশাকখাতের ক্রেতারা অন্যত্র চলে যাওয়ার আশঙ্কা করছেন দেশীয় উদ্যোক্তারা।

ব্যবসায়ীরা মনে করছেন, রাজধানীর গুলশানে ইতালিয়ান নাগরিক তাবেলা সিজার গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হওয়ার পরেও বিদেশি ক্রেতারা স্বাভাবিক ছিল। এ ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই শনিবার রংপুরে দুর্বৃত্তদের গুলিতে নিহত হন জাপানের নাগরিক কুনিও হোশি। পরপর এমন ঘটনায় উদ্বিগ্ন বাংলাদেশে অবস্থানরত সব বিদেশি নাগরিক। এমনকি যেসব বেদেশি নাগরিকের এ দেশে ব্যবসা-বাণিজ্য রয়েছে তারাও শঙ্কিত।

এ প্রসঙ্গে রোববার বিকেলে কথা হয় ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইয়ের প্রাক্তন সভাপতি মীর নাসির হোসেনের সঙ্গে। চলমান পরিস্থিতি নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে তিনি বলেন, ‘এসব ঘটনায় ব্যবসা-বাণিজ্যে চরম নেতিবাচক প্রভাব পড়বে। যেখানে বিদেশি ক্রেতা বা বিনিয়োগকারীরা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন, সেখানে ইতিবাচক কিছু ভাবা যায় না।’

সবশেষ জাপানি নাগরিক হত্যাকাণ্ড প্রসঙ্গে এই ব্যবসায়ী নেতা বলেন, ‘এ ঘটনায় বাংলাদেশে যে জাপানি বিনিয়োগের সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছিল, তা কিছুটা হলেও বিঘ্নিত হবে।’

এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ইএবি) সভাপতি ও বিজিএমইএর প্রাক্তন সভাপতি আবদুস সালাম মুর্শেদী এ প্রসঙ্গে বলেন, ‘পরপর দুটি ঘটনা আমরা (বাংলাদেশিরা) ছোট করে দেখলেও এর বিশালতা আছে। বিদেশিরা গভীরভাবে বিষয়টি নিয়ে চিন্তা করছেন। রানা প্লাজা ট্র্যাজেডি ও রাজনৈতি অস্থিরতার নেতিবাচক প্রভাব কাটিয়ে উঠতে না উঠতেই বিদেশি নাগরিক হত্যাকাণ্ডের ঘটনা আমাদের (ব্যবসায়ীদের) আরো চ্যালেঞ্জের মুখে ফেলেছে।’

কথা হয় তৈরি পোশাক শিল্প খাতের আরেক উদ্যোক্তা ও বিজিএমইএর সিনিয়র সহ-সভাপতি ফারুক হাসানের সঙ্গে। তিনি জানান, সোমবার বিদেশি ক্রেতাদের সঙ্গে বিজিএমইএর একটি বৈঠক হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু শনিবার জাপানি নাগরিক হত্যাকাণ্ডের পরে রোববার বায়াররা বৈঠকটি বাতিল করেছেন।

ফারুক হাসান বলেন, ‘বিদেশি নাগরিকদের নিরাপত্তার জন্য সরকার যথাযথ ব্যবস্থা না নিলে দেশের পোশাকখাত হুমকির মুখে পড়বে। ইতিমধ্যে আমরা সরকারকে জানিয়েছি। অন্যদিকে বড় ধরনের ক্রেতাদের বোঝানোর চেষ্টা করছি।

এ প্রসঙ্গে বেসরকারি গবেষণা সংস্থা সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ-সিপিডির অতিরিক্ত গবেষণা পরিচালক ড. খন্দকার গোলাম মোয়াজ্জেম বলেন, বাংলাদেশের নিরাপত্তা পরিস্থিতির সঙ্গে বিদেশি বিনিয়োগকারী কিংবা তৈরি পোশাকখাতের ক্রেতারা দীর্ঘদিন ধরে পরিচিত। তাদের কাছে এটা নতুন কোন বিষয় নয়। তবে সাম্প্রতিক ঘটনাগুলো তাদের গভীরভাবে ভাবিয়ে তুলছে। একইসঙ্গে এসব ঘটনায় দেশ ইমেজ সংকেটে পড়বে।’

এখন বিদেশি বিনিয়োগকারীরা বাংলাদেশ সরকার কী পদক্ষেপ নিচ্ছে-সেদিকে তাকিয়ে আছেন বলে মনে করেন এই গবেষক।