মালয়েশিয়ায় কর্মী যাবে ২৫ এজেন্সি ও ২৫০ এজেন্টের মাধ্যমে

নিজস্ব প্রতিবেদক || প্রকাশ: ২০২২-০১-১০ ২১:৩৭:৫৬ || আপডেট: ২০২২-০১-১০ ২১:৩৭:৫৬

সিন্ডিকেটের মাধ্যমে কর্মী পাঠানোর অভিযোগে দীর্ঘদিন বন্ধ থাকা মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার খুলছে। তৎপর হয়ে উঠেছে বাংলাদেশের জনশক্তি রপ্তানিকারক প্রতিষ্ঠানগুলো। তবে এই সুযোগ পাচ্ছে হাতেগোনা কয়েকটি প্রতিষ্ঠান।

বাংলাদেশের নির্দিষ্ট ২৫টি রিক্রুটিং এজেন্সি ও ২৫০ সাব-এজেন্ট মালয়েশিয়ায় জনশক্তি রপ্তানি করতে পারবে। তাদের বাইরে অন্য কোনো প্রতিষ্ঠান আপাতত সেদেশে কর্মী পাঠানোর সুযোগ পাচ্ছে না।

সোমবার (১০ জানুয়ারি) মালয়েশিয়ার সংবাদ মাধ্যম ‘মালয়েশিয়াকিনি’ সূত্রে এমন তথ্য জানা গেছে।

সংবাদ মাধ্যমটি জানায়, বাংলাদেশি ২৫ রিক্রুটিং এজেন্ট (বিআরএ) ও ২৫০ সাব-এজেন্টের নাম মালয়েশিয়ায় নতুন কর্মী নিয়োগের নিবন্ধন তালিকায় যুক্ত হতে যাচ্ছে। দু’দেশের সরকারের মধ্যে সম্পাদিত সমঝোতা চুক্তির খসড়ায় এমন তথ্য রয়েছে।

‘মালয়েশিয়াকিনি’ দাবি করেছে, ওইসব এজেন্সি ও সাব-এজেন্টের নামের তালিকা ও চুক্তির খসড়া তাদের হাতে রয়েছে। ওই খসড়ায় দেশটিতে বাংলাদেশ থেকে নতুন কর্মী নিয়োগ এবং প্রত্যাবাসনের প্রস্তাবিত প্রক্রিয়া ও পদ্ধতির রূপরেখা, বিভিন্ন পর্যায়ে নিয়োগকর্তাদের আবেদন থেকে শুরু করে মালয়েশিয়ায় আগমন প্রক্রিয়ার বিস্তারিত ব্যাখ্যা রয়েছে।

মালয়েশিয়া গত ১০ ডিসেম্বর বাংলাদেশিদের জন্য তাদের শ্রমবাজার খুলে দেয়ার ঘোষণা দেয়। ওইদিন মালয়েশিয়ার মানবসম্পদ মন্ত্রী সেরি এম সারাভানান এক বিবৃতিতে এ ঘোষণা দেন।

মন্ত্রী সারাভানান একইসঙ্গে জানিয়ে দেন, দু’দেশের মধ্যে চুক্তি স্বাক্ষরের পর পরই বাংলাদেশ থেকে কর্মী নিয়োগের প্রক্রিয়া শুরু হবে। বৃক্ষরোপণ, কৃষি, শিল্প উৎপাদন, সেবা খাত, খনিজ উত্তোলন, নির্মাণ, গৃহকর্ম ইত্যাদি ক্যাটাগরিতে বাংলাদেশ থেকে কর্মী নেয়া হবে।

সারাভান আরও জানান, দেশটির সব খাতেই বিদেশি শ্রমিক নিয়োগের ব্যাপারে মালয়েশিয়ার মন্ত্রিপরিষদ সম্মত হয়েছে। তবে এবারই প্রথমবারের মতো বৃক্ষরোপণ খাতে বিদেশি শ্রমিক নেয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইমরান আহমদ ১৭ ডিসেম্বর আন্তর্জাতিক অভিবাসী দিবসের অনুষ্ঠানে বলেন, ‘সিন্ডিকেট নয়; মালয়েশিয়ায় কর্মী পাঠানো হবে জনশক্তি, কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর (বিএমইটি) অধীনে থাকা ডাটা ব্যাংক থেকে। তিন বছর বন্ধ থাকার পর চালু হতে যাওয়া অন্যতম এই শ্রমবাজারে সরকার কোনো সিন্ডিকেটের হস্তক্ষেপ চায় না।’

সবশেষ ১৯ ডিসেম্বর এ বিষয়ে একটি সমঝোতা স্মারক সই হয়। প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইমরান আহমদ এবং মালয়েশিয়ার মানবসম্পদ মন্ত্রী দাতুক সেরি এম সারভানান নিজ নিজ দেশের পক্ষে কুয়ালালামপুরে এই চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন।

এএ