মৃত্যুদণ্ড রিভিউয়ের আবেদন মুজাহিদের

|| প্রকাশ: ২০১৫-১০-১৪ ১১:১৫:৫০ || আপডেট: ২০১৫-১০-১৪ ১১:১৬:১৬

ashik-mujahid

মানবতাবিরোধী অপরাধে আপিল বিভাগের চূড়ান্ত রায়ের পুনর্বিবেচনা চেয়ে (রিভিউ) আবেদন করলেন জামায়াত নেতা আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদ।

আজ বুধবার সকালে শিশির মনির সুপ্রিম কোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় এই আবেদন জমা দেন।

সর্বোচ্চ আদালতের সাজার রায় পুনর্বিবেচনার আবেদনের জন্য ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত আলী আহসান মুজাহিদ ও সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর  কাছে আর আর দুই দিন সময় রয়েছে।

আইনজীবী শিশির মনির জানিয়েছেন, রিভিউ আবেদনে রায় পুনর্বিবেচনার পক্ষে ৩২টি যুক্তি তুলে ধরা হয়েছে।

অন্যদিকে, মানবতাবিরোধী অপরাধে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত বিএনপি নেতা সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর রিভিউ আবেদনও দুপুরের মধ্যে জমা দেওয়া হবে বলে  জানিয়েছেন তার আইনজীবী হুজ্জাতুল ইসলাম খান আলফেসানী।

নিয়ম অনুযায়ী, রিভিউ নিষ্পত্তির আগে তার দণ্ড কার্যকর করা যাবে না। আর রিভিউ খারিজ হয়ে গেলে সেই রায়ের অনুলিপি কারাগারে যাবে এবং কারা কর্তৃপক্ষ সরকারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আসামিদের ফাঁসি কার্যকর করবে।

গত ১৬ জুন মুজাহিদ এবং ২৯ জুলাই সালাউদ্দিন কাদেরের মামলায় আপিল বিভাগ রায় ঘোষণা করা হয়। পৃথক দিনে তাদের রায় দেওয়া হলেও গত ৩০ সেপ্টেম্বর পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশিত হয়। ওইদিনই তা আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। পরদিনই তাদের দণ্ড কার্যকরে মৃত্যু পরোয়ানা জারি করে ট্রাইব্যুনাল এবং তা কারা কর্তৃপক্ষের হাতে পাঠিয়ে দেয়।

এরপর ১ অক্টোবর ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে মুজাহিদকে এবং কাশিমপুর কারাগারে সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীকে সেই মৃত্যু পরোয়ানা পড়ে শোনায় কারা কর্তৃপক্ষ। এর মধ্য দিয়ে শুরু হয় পুনর্বিবেচনার (রিভিউ) আবেদনের দিন গণনা।

গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে মুজাহিদের সঙ্গে দেখা করেন তার আইনজীবী শিশির মনির, মসিউল আলম, এহসান আব্দুল্লাহ সিদ্দিক, মতিউর রহমান আকন্দ ও আসাদ উদ্দিন।

পরে আইনজীবী শিশির মনির জানান, আমরা বুধবার রিভিউ দায়ের করব। মুজাহিদ দুটি প্রশ্ন তুলছেন। তা হলো- ১৯৭১ সালে তার বয়স ছিল ২৩ বছর, তিনি ছিলেন ছাত্র। একজন ছাত্র কীভাবে একটি আধা সামরিক বাহিনীর কমান্ডার হন? এছাড়া কে তাকে কমান্ডার হিসেবে নিয়োগ দিয়েছে? কীভাবে নিয়োগ হলেন? এ বিষয়ে কোনো দালিলিক বা মৌখিক সাক্ষী রাষ্ট্রপক্ষ হাজির করতে পারেননি।

তিনি বলেন, মুজাহিদ আশা করেন, আপিল বিভাগ উল্লেখিত বিষয়গুলো বিবেচনায় নেবেন এবং তার দণ্ড মওকুফ করে ওই অভিযোগ থেকে খালাস দেবেন।

সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন গতকাল বলেন, বুধবার রিভিউ আবেদন করার চেষ্টা করব।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেছিলেন, আইন অনুযায়ী যেভাবে অগ্রসর হওয়ার কথা, তারা সেভাবেই অগ্রসর হবেন।

এর আগে পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশের পর ৩ অক্টোবর মুজাহিদের সঙ্গে তার আইনজীবীরা এবং ৬ অক্টোবর সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর সঙ্গে তার আইনজীবীরা দেখা করেছিলেন। গত ৯ অক্টোবর ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে গিয়ে মুজাহিদের সঙ্গে দেখা করেন তার স্ত্রী, তিন ছেলে ও মেয়ে।