মাদরাসাগুলোতে নজরদারি বাড়ানো হচ্ছে

|| প্রকাশ: ২০১৫-১০-১৪ ১১:২৬:১২ || আপডেট: ২০১৫-১০-১৪ ১৪:০৬:০৫

Madrasahনজরদারি বাড়ানো হচ্ছে রাজধানীর মাদরাসাগুলোতে। খোঁজ নেয়া হবে তাদের আয়-ব্যায়ের। সার্বক্ষণিক খোঁজখবরের জন্য নিয়োজিত থাকবেন সংশ্লিষ্ট থানার একজন কর্মকর্তা।

মঙ্গলবার পুলিশ সদর দপ্তরে ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তাদের এক বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

দেশে দুই স্থানে দুই বিদেশি হত্যায় জঙ্গি সংগঠন আইএসের দায় স্বীকারের পর নিষিদ্ধ ঘোষিত কিন্তু সক্রীয় আছে এমন সংগঠনগুলোর ব্যাপারে এবার নড়েচড়ে বসেছে পুলিশ। আর এ লক্ষ্যেই প্রতিটি মাদ্রাসাতে বাড়ানো হচ্ছে নজরদারি। সেই সঙ্গে জঙ্গিদের কার্যক্রমের ব্যাপারেও নজরদারি বাড়াতে বলা হয়েছে ডিএমপি থেকে।

বৈঠক সূত্রে জানা যায়, মাদরাসাগুলোতে নজরদারি বৃদ্ধির জন্য প্রতিটি মাদ্রাসার তালিকা তৈরি করবে পুলিশ। সেইসঙ্গে ওইসব মাদারাসায় যারা কমিটিতে আছেন তাদের এবং ছাত্র-ছাত্রীদের নামীয় তালিকা ও ঠিকানা চাওয়া হবে। মাদ্রাসাগুলো কীভাবে আয় করছে এবং তা কীভাবে ব্যয় করছে সে ব্যাপারেও নজরদারির সিদ্ধান্ত হয়। বিশেষভাবে নজদারি করতে বলা হয়েছে, বিভিন্ন সময়ে রাজধানীর যেসব মাদ্রাসা থেকে বিভিন্ন অপরাধে অপরাধী আটক করা হয়েছিল সেসব মাদরাসার ব্যাপারে। চলতি মাসেই শুরু হবে এ কার্যক্রম।

কোনো নিষিদ্ধ ঘোষিত সংগঠন যাতে মাদ্রাসাগুলো থেকে তাদের কার্যক্রম চালাতে না পারে তার জন্য মাদরাসার প্রধান ও কমিটির লোকজনদের নিয়ে বসবে পুলিশ। তাদের সাথে আলোচনা করবে এবং তাদের সহযোগিতাও চাইবে। এজন্য পুলিশকে বেশি বেশি যোগাযোগ বাড়াতে বলা হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে ডিএমপি কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া বলেন, ‘নিষিদ্ধ ঘোষিত সংগঠনগুলোর গতিবিধির বিষয়ে সবসময়ই পুলিশ সজাগ আছে। বিতর্কিত কিংবা সন্দেহজনক যে কোনো কিছুর বিষয়েও সবসময় গোয়েন্দা নজরদারি থাকে। আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি বিঘ্ন হতে পারে এমন কোনো কিছুই হতে দেয়া হবে না।’

চলতি মাসে চট্টগ্রামে কর্ণফুলী থানার খোয়াজ নগর আইয়ুব বিবি সিটি করপোরেশন স্কুল অ্যান্ড কলেজের পাশের একটি আস্তানায় অভিযান চালিয়ে ৫ জঙ্গিকে আটক করে পুলিশ। এসময় পুলিশের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছিল, অভিযান থেকে ওই সংগঠনটির সামরিক শাখার প্রধানকেও আটক করা হয়েছে। তবে আটককৃতরা কোন জঙ্গি সংগঠনের সদস্য তা নিশ্চিত করে বলতে পারেনি পুলিশ। সেই অভিযানে ঘটনাস্থল থেকে ১৫টি হ্যান্ড গ্রেনেড, ১২০ রাউন্ড গুলি, ১০টি ছুরি ও বিপুল পরিমাণ বোমা তৈরির সরঞ্জাম উদ্ধার করে।

ঈদ-উল আযহার আগের দিন ককটেল হামলা করে টাকা ছিনতাইয়ের ঘটনায় দু’জন মারা যায়। সেই সূত্র ধরেই পুলিশ এ অভিযান চালিয়েছিল।

জঙ্গিরা ছিনতাইয়ের এমন পন্থায় সংগঠনের খরচ চালাতে অর্থ আদায় করে থাকেন। তাই ঘটনাকে বেশ আমলে নেয় পুলিশ। পুলিশ ধারণা করছে, জঙ্গিরা আবারও মাথাচাড়া দিয়ে ওঠার চেষ্টা করছে। সেই লক্ষ্যে তারা অর্থও সংগ্রহ করছে।

পুলিশের একটি সূত্র জানায়, দেশে বিভিন্ন সময়ে জঙ্গিদের ধরা পড়লেও তাদের কার্যক্রম কোনোভাবেই বন্ধ করা যাচ্ছে না। জঙ্গিরা গ্রেপ্তার হলেও দিচ্ছেন না আসল ঠিকানা ও তাদের নেতাদের নাম। ফলে অধরাই থেকে যাচ্ছে কোথায় থেকে জঙ্গি সৃষ্টি হচ্ছে এবং কারা এইসব সংগঠনকে দেখভাল এবং পরিচালনা করছেন। সূত্র: বাংলামেইল

সানবিডি/ঢাকা/এসএস