ছেলের বউকে ধর্ষণ করলেন শ্বশুর

|| প্রকাশ: ২০১৫-১০-২২ ১৭:৫৩:৪৭ || আপডেট: ২০১৫-১০-২২ ১৭:৫৩:৪৭

bhola-dhorson-news-22.10.15জেলার লালমোহন উপজেলায় ছেলের বউকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে শ্বশুরের বিরুদ্ধে। এ ঘটনা ফাঁস হওয়ার পর থেকে শ্বশুর মাদু মাঝি পলাতক রয়েছেন।

সরেজমিনে গিয়ে এলাকাবাসীর সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, তিন বছর আগে লালমোহন উপজেলার ধলীগৌরনগর ইউনিয়নের মাদু মাঝির ছেলে সোহাগের সঙ্গে বিয়ে হয় ওই গৃহবধূর। বিয়ের পর থেকে শ্বশুর মাদু মাঝি তাকে নানা কুপ্রস্তাব দিতেন। এ ছাড়া মাদু মাঝি অনেক আগে থেকেই নারীলোভী।

নির্যাতিত গৃহবধূ অভিযোগ করে বলেন, ‘বিয়ের পর থেকেই শ্বশুর আমাকে বিভিন্ন সময় কুপ্রস্তাব দিতেন। স্বামী নদীতে মাছ ধরতে যায়। অধিকাংশ সময় রাতে সে বাড়িতে ফেরে না। এ সুযোগে শ্বশুর আমাকে বিভিন্ন সময়ে কু-প্রস্তাব দেন। আমি লোকলজ্জার ভয়ে কাউকে কিছু বলতাম না।

প্রায় এক বছর আগে স্বামী নদীতে মাছ শিকার করতে গেলে শ্বশুর আমাকে ভয় দেখিয়ে রাতে জোর করে একাধিকবার ধর্ষণ করেন। বিষয়টি আমি কাউকে বললে আমার সংসার ভাঙার এবং আমাকে হত্যার হুমকি দেন। তারপর থেকে একইভাবে মাদু মাঝি আমাকে জোর করে রাতভর ধর্ষণ করতে থাকেন। তার এই যৌন নির্যাতনে আমি অতিষ্ঠ হয়ে উঠি।’

তিনি বলেন, ‘১৬ অক্টোবর রাত ১টার দিকে একই সুযোগে মাদু মাঝি আমাকে একাধিকবার ধর্ষণ করেন। আমার রক্তপাত শুরু হলে চিৎকার দিই। আমার চিৎকারে ভাসুরের স্ত্রী সাহানুর ও আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসেন। তারা লাঠিসোটা নিয়ে তাকে ধাওয়া করেন। এ সময় শ্বশুর পালিয়ে যান।’

নির্যাতিতার ভাসুরের স্ত্রী সাহানুর বলেন, ‘আমার জায়ের চিৎকারে আমি আলো নিয়ে তার কাছে গেলে খুব খারাপ অবস্থায় দেখতে পাই। আমাদের দেখে শ্বশুর পালিয়ে যান। এখন পর্যন্ত তার কোনো সন্ধান পাওয়া যায়নি।’

তিনি আরও বলেন, ‘বিয়ের পর আমার শ্বশুর বিভিন্ন সময় আমাকেও কুপ্রস্তাব দিতেন। বিষয়টি আমি স্বামী ও শাশুড়িকে জানালে তিনি আমাকে কম জ্বালাতেন।’

মাদু মাঝির স্ত্রী মমতাজ বলেন, ‘স্বামীর সঙ্গে এসব কারণে আমার মিল ছিল না। আমি প্রায় সময় বাবার বাড়িতে থাকি। ওই ঘটনার দিনও বাড়িতে ছিলাম না। সকালে বাড়িতে এসে ছেলে ও বউয়ের কাছে ঘটনা শুনি। আমার স্বামী লম্পট। তার শাস্তি হওয়া উচিত।’

এ ব্যাপারে ধলীগৌরনগর ইউপি চেয়ারম্যান হেদায়তুল ইসলাম মিন্টু বলেন, মাদু মাঝির কয়েকটি বিচার আমি করেছি। বিষয়টি খুবই দুঃখজনক।’

লালমোহন থানার সহকারী পুলিশ সুপার রফিকুল ইসলাম বলেন, থানায় কোনো মামলা হয়নি। তবে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

সানবিডি/ঢাকা/রাআ