তাজিয়া মিছিলের প্রস্তুতির সময় বিস্ফোরণে শিশু নিহত

|| প্রকাশ: ২০১৫-১০-২৪ ১০:২১:২৫ || আপডেট: ২০১৫-১০-২৪ ১০:২১:২৫

Tajiaপুরান ঢাকার নাজিমউদ্দিন রোডে হোসেনী দালান এলাকায় শিয়াদের তাজিয়া মিছিলের প্রস্তুতিকালে বোমা হামলায় এক শিশু নিহত হয়েছে। গতকাল শুক্রবার দিবাগত রাত ২টার দিকে হোসেনী দালান চত্বরে ওই হামলায় অন্তত ১০০ জন আহত হয়েছেন।

চকবাজার থানার ওসি আজিজ আহমেদ জানান, আশুরা উপলক্ষে তাজিয়া মিছিলের প্রস্তুতি চলাচালে শুক্রবার রাত ১টা ৫৫ মিনিটের দিকে হোসেনী দালান চত্বরে পরপর তিনটি বিস্ফোরণ ঘটানো হয়। তাজিয়া মিছিলের জন্য শিয়া মতাবলম্বীরা হোসেনী দালানে সমবেত হওয়ার পর বিস্ফোরণগুলো ঘটে।

র‌্যাবের অতিরিক্ত মহাপরিচালক জিয়াউল আহসান বলেন, ককটেল জাতীয় হাতে তৈরি বোমার বিস্ফোরণ ঘটানো হয়েছে। হোসেনী দালানে শিয়া মতাবলম্বীরা সমবেত হওয়ার পর বাইরে থেকে এগুলো ছুড়ে দেওয়া হয়েছে।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পুলিশ ফাঁড়ির পরিদর্শক মোজাম্মেল হক জানান, হোসেনী দালানে বিস্ফোরণের ঘটনায় আহত ৫৭ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এদের মধ্যে ১০/১২ বছরের এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে।

ঢাকা মেডিকেলে দায়িত্বরত এক পুলিশ সদস্য জানান, নিহত শিশুর নাম সানজু। ঢাকা মেডিকেলে ৫৭ জনকে এবং অন্যান্যদের পুরান ঢাকার মিটফোর্ড হাসপাতালসহ আশপাশের ক্লিনিকে নেওয়া হয়েছে।

মিটফোর্ড হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক মাসুদুর রহমান জানান, হোসেনী দালান চত্বরে বিস্ফোরণে আহত ৩১ জনকে এখানে ভর্তি করা হয়েছে। তাদের মধ্যে কারও অবস্থা আশঙ্কাজনক নয়। তবে তিনজনের বেশ জখম হয়েছে। বেশ কয়েকজন প্রাথমিক চিকিৎসার পর বাড়ি ফিরে গেছেন।

চকবাজার থানার এসআই জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, হামলায় জড়িত সন্দেহে দুজনকে আটক করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, সপ্তম শতকে ১০ মহররম ফোরাত নদীর তীরে কারবালা প্রান্তরে শহীদ হন মহানবী হযরত মুহাম্মদ (স.)-এর দৌহিত্র ইমাম হোসাইন (রা.)। তার শহীদ দিসবকে ত্যাগ ও শোকের প্রতীক হিসেবে পালন করেন শিয়া মতাবলম্বীরা। দিবসটি উপলক্ষে প্রতিবছরের মতো আজ শনিবার ভোররাতে তাজিয়া মিছিলের জন্য হোসেনী দালানে সমবেত হন শিয়া মতাবলম্বীরা। ২০ থেকে ২৫ হাজার মানুষ সেখানে ছিলেন বলে জানিয়েছেন ফিরোজ হোসেন নামে তাদের এক নেতা।

তিনি বলেন, মিছিল শুরুর আগে নিরাপত্তা পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে পুলিশ ও র‌্যাব সদস্যরা হোসেনী দালানের চারপাশ পরিদর্শন করেন। এর পরপর বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে।

র‌্যাবের এক কর্মকর্তা জানান, বিস্ফোরণের পর হোসেনী দালান চত্বর থেকে দুটি বোমা উদ্ধার করা হয়। নিষ্ক্রিয় করতে রাত সাড়ে ৪টার দিকে ঘটনাস্থলে একটি বোমার বিস্ফোরণ ঘটানো হয়। অন্যটি পরীক্ষার জন্য নেওয়া হয়েছে।

হোসেনী দালান ছাড়াও রাজধানীর মোহাম্মদপুর, মিরপুর, মগবাজার ও পল্টন থেকেও তাজিয়া মিছিল বের করেন শিয়া মতাবলম্বীরা।

ওই হামলার পর মোহাম্মদপুরে শিয়াদের নিরাপত্তায় বাড়তি পুলিশ-র‌্যাব মোতায়েন করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন মোহাম্মদপুর শিয়া মসজিদ কমিটির সভাপতি রাশেদ হায়দার।

সানবিডি/ঢাকা/এসএস