গরু বা মহিষের মাংস কে না খায়

|| প্রকাশ: ২০১৫-১০-৩১ ১৪:৩৪:১৩ || আপডেট: ২০১৫-১০-৩১ ১৪:৩৪:১৩

cow_88809সম্প্রতি কিছু অনাকাঙ্খিত ঘটনা ঘটে থাকলেও ভারতে গরু বা মহিষের মাংস অনেকেই খেয়ে থাকেন। সে দেশে যত মানুষ গরু বা মহিষের মাংস খান তাদের মধ্যে সোয়া কোটিই হিন্দু।

হিন্দু প্রধান দেশ ভারতে ধর্মীয় কারণেই গরুর মাংস কম খাওয়া হয়। তবে মহিষের মাংস খান অনেকেই। গরু এবং মহিষের মোট ভোক্তা প্রায় ৮ কোটি। ২০১১-১২ সালে একটি জরিপ চালিয়েছিল ভারতের ‘দ্য ন্যাশনাল স্যাম্পল সার্ভে অফিস’ (এনএসএসও)। সেই জরিপ থেকে বেরিয়ে এসেছে এই তথ্য।

জরিপ থেকে আরো জানা গেছে, যারা গরু বা মহিষের মাংস খান তাদের বেশিরভাগ মুসলমান হলেও সেখানে সোয়া এক কোটি হিন্দুও এসব মাংস খান।

জরিপ থেকে আরো জানা যায়, বিশ্বের সবচেয়ে বড় গণতান্ত্রিক দেশে গরু বা মহিষের মাংস খাওয়া বাড়ছে। এক কোটি মানুষের মধ্যে জরিপটি চালিয়েছিল এনএসএসও।

জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি বিষয়ক সংস্থা (এফএও) ১৭৭টি দেশে সব ধরনের মাংস খাওয়ার হার সম্পর্কে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। তালিকায় সবার নিচে রয়েছে ভারত।

FAO এর দেয়া তথ্য অনুযায়ী, গবাদি পশুর, বিশেষ করে গরু এবং মহিষের মাংসের সবচেয়ে বড় রপ্তানিকারক দেশ ভারত। সাধারণ মানুষের ক্রয়ক্ষমতা বৃদ্ধি, খাদ্যাভ্যাস পরিবর্তন এবং নগরায়ণের কারণে মানুষের মাংস খাওয়ার প্রবণতা বাড়ছে। তারপরও অবশ্য অন্য সব দেশের তুলনায় ভারতের মানুষ এখনো অনেক কম মাংস খায়।

ভারতের মোট মুসলমানের মধ্যে প্রায় ৬ কোটি মুসলমান গরু বা মহিষের মাংস খান। সংখ্যার দিক থেকে তারপরেই রয়েছে হিন্দুরা। নিজেদের মোট সংখ্যার শতকরা হারের বিচারে মুসলমানদের পরেই রয়েছেন খ্রিস্টানরা।

মুসলিম জনগোষ্ঠীর পাশাপাশি নিম্নবর্ণের হিন্দু বা উপজাতিরাও যথেষ্ট গরু বা মহিষের মাংস খান। উচ্চ বর্ণের অনেক হিন্দুও গরু বা মহিষের মাংস পছন্দ করেন।

সানবিডি/ঢাকা/রাঅা