বাস্তবে রূপ নিচ্ছে সাই-ফাইয়ের জনমানবহীন মরুশহর

|| প্রকাশ: ২০১৫-১০-১৩ ১২:১৪:০৬ || আপডেট: ২০১৫-১০-১৩ ১২:১৪:০৬

town-655x360

নিউ মেক্সিকোর মরুভূমিতে তৈরি হচ্ছে নতুন এক শহর। ৩৫ হাজার নাগরিকের ধারণক্ষমতাসম্পন্ন সেই শহরে থাকবে আলাদা ব্যবসা কেন্দ্র, আবাসিক এলাকা, শপিং মল আর চার্চ। কিন্তু এতে কখনই থাকবে না কেউ। বরং নতুন উদ্ভাবিত প্রযুক্তির কার্যক্ষমতা নিয়ে চলবে নানা পরীক্ষা।

ব্রিটিশ ট্যাবলয়েড ‘ডেলি মিরর’ এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, ১০০ কোটি মার্কিন ডলার খরচ করে ১৫ বর্গমাইল জায়গা জুড়ে ‘সাইট (সেন্টার ফর ইনোভেশন, টেস্টিং অ্যান্ড ইভ্যালুয়েশন)’ শহরটি তৈরি করছে একটি টেলিকমিউনিকেশন প্রতিষ্ঠান। কেবল নতুন প্রযুক্তি পরীক্ষার জন্যই তৈরি হচ্ছে শহরটি।

এই প্রকল্পের মূল পৃষ্ঠপোষক প্রতিষ্ঠান পেগ্যাসাস গ্লোবাল হোল্ডিংসের অন্যতম কর্তা রবার্ট ব্রামলি জানিয়েছেন, মূল লক্ষ্যটাই হচ্ছে এমন একটি পরিবেশ তৈরি করা যাতে দৈনন্দিন জীবনে বাধা সৃষ্টি না করে নতুন পণ্য, পরিষেবা এবং অন্যান্য প্রযুক্তির কার্যক্ষমতা যাচাই ও প্রমাণ করা যায়।

‘ডেলি মিররে’ প্রকাশিত খবর অনুযায়ী, চালকবিহীন রোবোটিক গাড়ির কার্যক্ষমতা থেকে শুরু করে বিকল্প শক্তির উৎসের মাধ্যমে বড় এলাকায় বাসস্থানের জন্য প্রয়োজনীয় বিদ্যুৎ শক্তি সরবরাহের প্রকল্প, সব কিছু নিয়েই পরীক্ষা চালানো হবে এই ‘সাইটে’। পরিকল্পনামাফিক ২০১৮ সালের মধ্যেই শেষ হয়ে যেতে পারে মরুশহরটির সম্পূর্ণ নির্মাণকাজ।