শেয়ার মানি ডিপােজিটের বিষয়ে চার নির্দেশনা এফআরসির

নিজস্ব প্রতিবেদক || প্রকাশ: ২০২০-০২-১৩ ০৯:৪২:০৮ || আপডেট: ২০২০-০২-১৩ ০৯:৫৭:৩৪

শেয়ার মানি ডিপােজিটের বিষয়ে চারটি নির্দেশনা দিয়েছে ফাইনান্সিয়াল রিপােটিং কাউন্সিল (এফআরসি)। সংস্থাটি জানিয়েছে, যৌথ মূলধন কোম্পানি ও ফার্মসমূহের নিবন্ধক (আরজেএসসি) অথবা জনস্বার্থ সংস্থা কর্তৃক অনুমোদন প্রাপ্ত সকল প্রতিষ্ঠানের জন্য এই নির্দেশনা। ফাইনান্সিয়াল রিপাের্টিং এ্যাক্ট (এফআরএ) ২০১৫ এর ধারা ৮(২)(ঘ) মােতাবেক হিসাবরক্ষণ আইন অনুযায়ী জনস্বার্থে এই নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

পুঁজিবাজারের সব খবর পেতে জয়েন করুন

 ক্যাপিটাল নিউজক্যাপিটাল ভিউজস্টক নিউজ

এফআরসির নির্বাহী পরিচালক (মানদণ্ড নির্ধারণী) মুহাম্মদ আনওয়ারুল করিমের স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে এই নির্দশনা দেওয়া হয়েছে। চারটি নির্দেশনায় বলা হয়েছে-

প্রথমত, মূলধন খাতে প্রাপ্ত অর্থ যাহা শেয়ার মানি ডিপােজিট বা অন্য কোন নামকরণে কোম্পানীর মূলধন বা ইকুইটিতে অন্তর্ভুক্ত করা হইয়াছে, তাহা কোনভাবেই প্রত্যাহার বা ফেরত নেয়ার যােগ্য হইবে না।

দ্বিতীয়ত,এই খাতে প্রাপ্ত অর্থ সর্বোচ্চ ৬ (ছয়) মাসের মধ্যে আইনগতভাবে মূলধনে রূপান্তরিত করিতে হইবে।

তৃতীয়ত, মূলধনে রূপান্তরের পূর্ব পর্যন্ত উক্ত তহবিল সম্ভাব্য শেয়ার হিসাবে বিবেচিত হইবে এবং সেই মােতাবেক ইপিএস গণনায় অন্তর্ভুক্ত করিতে হইবে।

চতুর্থ হলো-এফআরএ ২০১৫ দ্বারা বাংলাদেশে পরিগৃহীত ইন্টারন্যাশনাল ফাইনান্সিয়াল রিপাের্টিং স্ট্যান্ডার্ড ( আইএফআরএস) এ উল্লেখিত মূলধন বা ইকুইটি সংজ্ঞা এর কার্যকরী বাস্তবায়নের লক্ষ্যে এই গাইডলাইন জারী করা হইল। এই গাইডলাইন প্রতিপালনে কোন প্রকার ব্যত্যয়ের ক্ষেত্রে এফআরএ ২০১৫ এর ধারা ৪৮ এ উল্লিখিত দন্ড কার্যকর করা যাইতে পারে।