করোনা কালে প্রাণশক্তি!

সান বিডি ডেস্ক জি এম কিবরিয়া || প্রকাশ: ২০২১-০৪-২৯ ১৬:২৬:১১ || আপডেট: ২০২১-০৪-২৯ ১৬:২৮:৩১

তিন বছরের একটি শিশু কত উচ্ছ্বসিত! সৃষ্টির আনন্দে, অজানাকে জানার আকাঙ্খায় এবং বিশ্ব জয়ের উল্লাসে সারাক্ষণ মত্ত থাকে সে। এতটুকুও যেন ক্লান্তি নেই; সারাদিন দৌড়াদৌড়ি, হৈ-হুল্লোর, হাসি-আনন্দ, জেদ-অভিমান-বায়না; আরও কত কি!

শিশুর এই উচ্ছ্বসের নামই প্রাণ শক্তি।

এই প্রাণের উচ্ছ্বাস কার না ভাললাগে? যদি বিপত্তি না ঘটতো! দেখবেন, সে ক্রমাগত বিপদের পর বিপদে পরছে। এখানে ধাক্কা, নয় ওখানে টক্কর! হয়তো মাথা ফুলিয়ে, নয়তো ফাটিয়ে ফেলছে! ভেঙ্গে ফেলছে হাত-পা। আর একি হাল ঘরের জিনিস পত্রের? এটা ভাঙ্গছে নয় ওটা! একেবারে যেন বিতিকিচ্ছিরি অবস্থা।

এ অবস্থার জন্য কি ঐ প্রাণ শক্তিরই দায়ী? আপাতত মনে হলেও আসলে না। মূলত শিশুর এই প্রাণশক্তি ইমব্যালেন্স হয়ে যাচ্ছে পরিপক্কতার অভাবে। অর্থাৎ শিশুর জ্ঞান ও অভিজ্ঞতার মিশ্রণে ঐ প্রাণশক্তির প্রয়োগ পরিপক্ক ভাবে ঘটেনি। এই পরিপক্কতা অর্জন করতে ছয় থেকে ৪০ বছর পর্যন্ত লেগে যায়। এর পরও মানুষ পরিপক্ক হয়, তবে তখন দৃষ্টি জ্ঞানের বিস্তৃতিই ঘটে বেশি।

মজার ব্যাপার হলো, মানুষ যতই জ্ঞানে-বিজ্ঞানে, কর্ম-অভিজ্ঞতায় পরিপক্ক হতে থাকে ততই সে এই মহামূল্যবান প্রাণশক্তি বা জীবনীশক্তিটুকুই হারিয়ে ফেলতে থাকে! এই প্রক্রিয়াটি জীবনের বিপত্তি, চরম বিপত্তি! তখন প্রাণশক্তির অভাবে পরিপক্ক বা অভিজ্ঞতা সম্পন্ন মানুষগুলো কেমন যেন আধমরা হয়ে যায়। কোন রকমে বেঁচে থাকার জন্যই যেন তারা বেঁচে থাকে! সবকিছুতে কেমন একটি বিরক্তি ভাব। জীবনটাই যেন তিতো তিতো লাগে! এমনকি রসগোল্লাও তার কাছে তিতো ঠেকে! নাহ! আমার তো ডায়াবেটিস! যে ভালবাসার মানুষটিকে এক নজর দেখতে খাল সাঁতরে উপারে যেতেন, তার সাথে এক খাটে থাকাটাও যেন এখন বিরক্তিকর! তিনি ঘুম থেকে উঠেনই রাজ্যের বিরক্তি নিয়ে, ঠিকমত বাথরুম হয় না, বুক ব্যাথা, পিঠ ব্যাথা, ছেলে কথা শুনে না তো মেয়ে মোবাইল নিয়ে সারাদিন। সব কিছুতেই না আর না। ফলে বিরক্তি আরও বাড়ে! গিন্নির ভাল কথাটাও গা জ্বলে! কোন রকমে অফিসে গিয়ে জুনিয়র কলিগকে বলেন, “আমরা আর ক’দিন! এখনতো আপনারা কাজ করবেন!” কেন স্যার? “এই সামনে পিআরএল।” স্যার কবে? এই ধরেন ২০৩৭ সালে! এ কথা শুনে জুনিয়র কলিগের বড় নিশ্বাস ছাড়া ব্যতিরেকে আর কিছুই করার থাকে না! “ভাতারও মরলো, রঙ বেরঙের চুড়িও বের হলো।” অর্থাৎ প্রাণশক্তি প্রয়োগের জন্য যথেষ্ট বোধশক্তি এলো কিন্তু সেই প্রাণশক্তিই হারিয়ে গেল! কি আর করা?

দেখুন না, গল্পটা কত মজার! শিশুকালে জ্ঞানহীন প্রাণশক্তি বিপত্তির কারন ছিল, এখন প্রাণশক্তিহীন জ্ঞান যেন জীবনকে বয়ে বেড়াতে পারছে না! একটি গল্প মনে পরে গেল। এক বাবনার (বামুন ঠাকুর) গল্প। “তো প্রচন্ড শীতে বাবনার জীবন আর বাঁচে না, তবুও দাঁতে দাঁত চেপে পৌষ মাসটি কাটিয়ে দিল, খুব কষ্টে! মাঘ মাসও শেষ হয় হয় অবস্থা। এদিগে শীতের কামড়ে বাবনা যেন মরেই যাচ্ছেন! তাই তিনি ক্রেজি হয়ে উঠলেন। আর মানবো না শীতের বাহাদুরি। যেই কথা সেই কাজ। সংসারের একমাত্র দুধাল গাভী বিক্রি করে তিনি লেপ-কাথা কিনে ফেললেন। বিপত্তিটি ছিল সেখানে, যেদিন লেপ-কাথা কিনলেন, সেদিন থেকেই ফাল্গুনী হাওয়া বইতে শুরু করলো। এখন লেপ-কথা দিয়ে কি করবেন। গাভী ছাড়া যে ভাতই চলে না।” এখানে প্রাণ ছাড়া জ্ঞানও একই শংকটে পতিত!

এই মহাসংকটের সমাধান কি?

যেহেতু, প্রাণশক্তি জ্ঞানশক্তি একে অপরের পরিপূরক, সেহেতু দুটোর সমন্বয়ের মধ্যেই সমাধান লুকাইত। এখন প্রশ্ন হলো, কিভাবে বয়স বাড়ার সাথে সাথে প্রাণশক্তিকে ধরে রাখা যায়?

খুব সহজে আপনি জ্ঞানশক্তি ও প্রাণশক্তির সমন্বয়ে জীবনকে আনন্দঘন, অর্থবহ ও কল্যাণকর করে তুলতে পারবেন। এর জন্য কোন কাঠখড়ই পোড়াতে হবে না। শুধু আপনার ইচ্ছা শক্তিই যথেষ্ট। জাষ্ট ২০-৩০ মিনিটের একটি নিয়ম পালন করুন প্রতিদিন। ব্যাস, তাতেই হবে। যেমনঃ

১। মহাজগতের তুলনায় আপনার অস্তিত্বকে নিয়ে ভাবুন, যেখানে পৃথিবী একটি বালু কনার চেয়ে ছোট, সেখানে আপনি মশাই কি? এতে আপনার অহংকার, অবিশ্বাস ও অস্থিরতা কমবে, বিপরীতে ধৈর্য্যতা ও স্থিরতা বাড়বে।

২। এই পৃথিবীর সবচেয়ে উন্নত মস্তিষ্কের প্রাণি মানুষ। লক্ষ কোটি বছরের বিবর্তণে ফলে এই উন্নত যন্ত্রটি আমরা পেয়েছি, যেখানে আমাদের পূর্ব পুরুষগণ গুহায় বসবাস করতো, এখন আমাদের হাতের মুঠোয় বিশ্ব। এই সভ্যতা প্রতিটি প্রজন্মেরই অবদান আছে। পূর্ব পুরুষদের আগুন, চাকার উপর ভর করেই কিন্তু আজকের এই সভ্যতা। তো, কালের সভ্যতায় আপনারও বিরাট অবদান রাখার সুযোগ আছে। তাই পজিটিভ ভাবুন। এই ভাবনা আপনার কর্মস্পৃহা বাড়বে।

৩। নদীর স্রোতের মতো সময় বয়ে যাচ্ছে। আসলে কি তাই? না, সময় নয়, আমাদের জীবন বয়ে যাচ্ছে। একঘন্টা কিংবা একদিন চলে যাওয়া মানে আপনার মূল্যবান জীবনের একটি মূল্যবান অংশ নিঃশ্বেস হয়ে যাওয়া। তাই প্রতিটি মুহূর্তকে কাজে লাগান, এই কথা বলব না, কারন এটি অসম্ভব। আমি বলতে পারি, প্রতিটি মুহূর্তেই খুশি থাকুন, আনন্দে থাকুন। কারন এটি সম্ভব। আপনি পৃথিবীতে কিছুই নিয়ে আসেননি বা সাথে করে কিছুই নিয়ে যাবেন না। তাই নাই নাই করে কিংবা পরশ্রী কাতর হয়ে জীবন কাটিয়ে দিবেন না। লম্বা দম নিন, বাঁচুন প্রাণ ভরে যেন প্রতিটি দিনই নতুন, প্রতিটি দিনই আপনার জন্য শুভ।

৪। শরির মহাশয়কে ফিট রাখুন। ভাবছেন খুব কঠিন? অথবা ভ্রু কুঁচকে বলছেন, জিমে যেতে হবে? না, মোটেই না। শুধু ১০/১৫ মিনিটে মাত্র ১০টি অভ্যাস করুন নিয়মিত, ব্যাস আপনি থাকবেন চাঙ্গা ও ফিট, একেবারে ফুরফুরে।

অভ্যাস গুলো কি কি?

১। আপনি বেঁচে আছেন, এর চেয়ে বড় আনন্দ আর কি হতে পারে! পৃথিবীতে প্রতিদিন প্রায় ১০ লক্ষ মানুষ ঘুম থেকে জেগে উঠে না। তারা ঘুমেই মারা যায়। আপনি তাদের একজনও হতে পারতেন! ঘুম থেকে উঠে যখন দেখবেন আপনি বেঁচে আছেন তখন সেই আনন্দে একটি বড় করে হাসি দিন। সৃষ্টিকর্তাকে ধন্যবাদ দিন। তিনি আপনাকে আরেকটি সুন্দর দিন উপহার দিয়েছেন। আরেকটি হাসি ও স্রষ্টাকে আরেকবার ধন্যবাদ দিন, যখন দেখবেন আপনার পরিবার স্বজন সবাই ভাল আছে।

২। কাত হয়ে শোয়া থেকে উঠুন।

৩। যোগ আসনের মতো বসুন। নাক দিয়ে বড় করে নিঃশ্বাস নি

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •